Dhaka 4:18 pm, Friday, 3 February 2023

রাজবাড়ীতে অটোচালককে কুপিয়ে হত্যা

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : 05:46:28 pm, Thursday, 26 November 2020
  • / 1573 জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর ইউনিয়নের চরখানখানাপুর নতুন বাজার এলাকায় আবু সাইদ নামে এক অটোচালককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাইদ একই উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের মরডাঙ্গা গ্রামের মহব্বত মুহুরির ছেলে। এঘটনায় পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পাঁচুরিয়ার মুচি সম্প্রদায়ের ১২ বছরের এক বালিকা পাশর্^বর্তী খানখানাপুর ইউনিয়নের একই  সম্প্রদায়ের আশিক জমাদারের প্রেমের  সম্পর্ক  ছিল। বুধবার তারা ওই বালিকা বিয়ের উদ্দেশ্যে আশিকদের বাড়িতে যায়। এলাকার  মানুষ বিষয়টি জেনে স্থানীয় ইউপি মেম্বারসহ আশিকদের বাড়িতে যায়। সেখানে সন্ধ্যার পর দুই পক্ষ  এক সালিস বৈঠকে বসে।  সালিসে উভয়পক্ষ সিদ্ধান্ত নেয় যেহেতু ছেলে মেয়ে দুজনই ছোট। অতএব তাদের বিয়ে দেওয়া যায়না। এরপর সালিসের লোকজন চলে যায়। ওই বালিকা, তার মা ও ফুফু আবু সাইদের অটোরিক্সায় করে কিছু দূর যাওয়ার পর আশিকের লোকজন তাকে থামতে বলে। সে না থামায় তার পিছু নিয়ে ধরে ফেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ফেলে রেখে চলে যায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে খানখানাপুর তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

খানখানাপুর তদন্ত কেন্দ্রের টুআইসি  এসআই জাফর আলী জানান, এ ঘটনায় পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে। তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক আশিক। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীতে অটোচালককে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশের সময় : 05:46:28 pm, Thursday, 26 November 2020

জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর ইউনিয়নের চরখানখানাপুর নতুন বাজার এলাকায় আবু সাইদ নামে এক অটোচালককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাইদ একই উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের মরডাঙ্গা গ্রামের মহব্বত মুহুরির ছেলে। এঘটনায় পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পাঁচুরিয়ার মুচি সম্প্রদায়ের ১২ বছরের এক বালিকা পাশর্^বর্তী খানখানাপুর ইউনিয়নের একই  সম্প্রদায়ের আশিক জমাদারের প্রেমের  সম্পর্ক  ছিল। বুধবার তারা ওই বালিকা বিয়ের উদ্দেশ্যে আশিকদের বাড়িতে যায়। এলাকার  মানুষ বিষয়টি জেনে স্থানীয় ইউপি মেম্বারসহ আশিকদের বাড়িতে যায়। সেখানে সন্ধ্যার পর দুই পক্ষ  এক সালিস বৈঠকে বসে।  সালিসে উভয়পক্ষ সিদ্ধান্ত নেয় যেহেতু ছেলে মেয়ে দুজনই ছোট। অতএব তাদের বিয়ে দেওয়া যায়না। এরপর সালিসের লোকজন চলে যায়। ওই বালিকা, তার মা ও ফুফু আবু সাইদের অটোরিক্সায় করে কিছু দূর যাওয়ার পর আশিকের লোকজন তাকে থামতে বলে। সে না থামায় তার পিছু নিয়ে ধরে ফেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ফেলে রেখে চলে যায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে খানখানাপুর তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

খানখানাপুর তদন্ত কেন্দ্রের টুআইসি  এসআই জাফর আলী জানান, এ ঘটনায় পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে। তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক আশিক। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।