Dhaka ১০:৩৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে পবিত্র আশুরা পালিত

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৭:৩৭:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ অগাস্ট ২০২০
  • / ১২৪৩ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন :  রাজবাড়ী আঞ্জুমান-ই- কাদেরীয়ার উদ্যোগে  সীমিত আকারে পবিত্র আশুরা পালিত হয়েছে। করোনা ভাইরাস সংকম্রণর কারণে  রাজবাড়ী শহরের বড় মসজিদ প্রাঙ্গণে স্বাস্থ্য বিধি মেনে প্রতিকী মিছিল করা হয়। মোনাজাতে মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে ও করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহ তাআলা’র কাছে প্রার্থনা করা হয়।

 ১০ই মহররম ইতিহাসের এক অসামান্য তাৎপর্যময় ও শোকাবহ দিন। কারবালার শোকাবহ ঘটনাবহুল এ দিনটি মুসলমানদের কাছে ধর্মীয়ভাবে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। ত্যাগ ও শোকের প্রতীকের পাশাপাশি বিশেষ পবিত্র দিবস হিসেবে দিনটি পালন করে মুসলিম বিশ্ব। ৬১ হিজরী সালের এই দিনে  প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (স:) এর প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) ও তার পরিবারের সদস্যরা ইয়াজিদের সৈন্যদের হাতে কারবালার ময়দানে শহীদ হন। এ কারণে আশুরার দিন মুসলিম জাহানের কাছে গুরুত্বপূর্ণ ও হৃদয়বিদারক দিন।

এ ঘটনা স্মরণ করে বিশ্ব মুসলিম যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনটি পালন করে থাকে। শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম ইসলামের মহান আদর্শকে সমুন্নত রাখতে তাদের এই আত্মত্যাগ মানবতার ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে রয়েছে। কারবালার এই শোকাবহ ঘটনা ও পবিত্র আশুরার শাশ্বত বাণী সকলকে অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে এবং সত্য ও সুন্দরের পথে চলতে প্রেরণা যোগায়।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীতে পবিত্র আশুরা পালিত

প্রকাশের সময় : ০৭:৩৭:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ অগাস্ট ২০২০

জনতার আদালত অনলাইন :  রাজবাড়ী আঞ্জুমান-ই- কাদেরীয়ার উদ্যোগে  সীমিত আকারে পবিত্র আশুরা পালিত হয়েছে। করোনা ভাইরাস সংকম্রণর কারণে  রাজবাড়ী শহরের বড় মসজিদ প্রাঙ্গণে স্বাস্থ্য বিধি মেনে প্রতিকী মিছিল করা হয়। মোনাজাতে মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে ও করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহ তাআলা’র কাছে প্রার্থনা করা হয়।

 ১০ই মহররম ইতিহাসের এক অসামান্য তাৎপর্যময় ও শোকাবহ দিন। কারবালার শোকাবহ ঘটনাবহুল এ দিনটি মুসলমানদের কাছে ধর্মীয়ভাবে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। ত্যাগ ও শোকের প্রতীকের পাশাপাশি বিশেষ পবিত্র দিবস হিসেবে দিনটি পালন করে মুসলিম বিশ্ব। ৬১ হিজরী সালের এই দিনে  প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (স:) এর প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) ও তার পরিবারের সদস্যরা ইয়াজিদের সৈন্যদের হাতে কারবালার ময়দানে শহীদ হন। এ কারণে আশুরার দিন মুসলিম জাহানের কাছে গুরুত্বপূর্ণ ও হৃদয়বিদারক দিন।

এ ঘটনা স্মরণ করে বিশ্ব মুসলিম যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনটি পালন করে থাকে। শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম ইসলামের মহান আদর্শকে সমুন্নত রাখতে তাদের এই আত্মত্যাগ মানবতার ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে রয়েছে। কারবালার এই শোকাবহ ঘটনা ও পবিত্র আশুরার শাশ্বত বাণী সকলকে অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে এবং সত্য ও সুন্দরের পথে চলতে প্রেরণা যোগায়।