Dhaka 11:17 am, Friday, 2 December 2022

চাঁদা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগে পাংশার ভাইস চেয়ারম্যানসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : 09:08:53 pm, Friday, 4 November 2022
  • / 1034 জন সংবাদটি পড়েছেন

দাবিকৃত চাঁদা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগে পাংশা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা জালাল উদ্দিন বিশ^াসসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার উপজেলার পাট্টা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার দলিল লেখক অতুল চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে রাজবাড়ীর ২ নং আমলী আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলো আব্দুল আলিম, জালাল মন্ডল, শাকিল ওরফে সুজন, আরাফাত হোসেন, উজির রাসেল, সিরাজুল ইসলাম, আকমল হোসেন ও মো. শরীফ। এদের সবার বাড়ি পাংশা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। মামলায় অজ্ঞাত আরও ৯/১০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, তিনি ১৮ বছর যাবৎ পাংশা সাব রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখক পেশায় নিয়োজিত। সম্প্রতি জালাল উদ্দিন বিশ^াস প্রণি নাশের হুমকি দিয়ে তার কাছে ১১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। জীবন রক্ষায় ভীত হয়ে তাকে তিন লাখ টাকা দেন। গত মঙ্গলবার জালাল উদ্দিনসহ অন্য আসামিরা দলিল লেখক কার্যালয়ে গিয়ে তার কাছে বাকী আট লাখ টাকা দাবি করেন। তিনি দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে।

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যড. জাহিদ হোসেন জানান, মামলাটি আমলে নিয়ে বিচারক সুমন হোসেন তদন্তের জন্য পিআইবিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এব্যাপারে পাংশা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও পাংশা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি জালাল উদ্দিন বিশ^াস বলেন, আমাকে হয়রানীর উদ্দেশ্যে এ মামলা করা হয়েছে। মামলায় যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি এ সম্পর্কে কিছুই জানি না।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

চাঁদা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগে পাংশার ভাইস চেয়ারম্যানসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশের সময় : 09:08:53 pm, Friday, 4 November 2022

দাবিকৃত চাঁদা না দেওয়ায় মারধরের অভিযোগে পাংশা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা জালাল উদ্দিন বিশ^াসসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার উপজেলার পাট্টা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার দলিল লেখক অতুল চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে রাজবাড়ীর ২ নং আমলী আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলো আব্দুল আলিম, জালাল মন্ডল, শাকিল ওরফে সুজন, আরাফাত হোসেন, উজির রাসেল, সিরাজুল ইসলাম, আকমল হোসেন ও মো. শরীফ। এদের সবার বাড়ি পাংশা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। মামলায় অজ্ঞাত আরও ৯/১০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, তিনি ১৮ বছর যাবৎ পাংশা সাব রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখক পেশায় নিয়োজিত। সম্প্রতি জালাল উদ্দিন বিশ^াস প্রণি নাশের হুমকি দিয়ে তার কাছে ১১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। জীবন রক্ষায় ভীত হয়ে তাকে তিন লাখ টাকা দেন। গত মঙ্গলবার জালাল উদ্দিনসহ অন্য আসামিরা দলিল লেখক কার্যালয়ে গিয়ে তার কাছে বাকী আট লাখ টাকা দাবি করেন। তিনি দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে।

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যড. জাহিদ হোসেন জানান, মামলাটি আমলে নিয়ে বিচারক সুমন হোসেন তদন্তের জন্য পিআইবিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এব্যাপারে পাংশা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও পাংশা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি জালাল উদ্দিন বিশ^াস বলেন, আমাকে হয়রানীর উদ্দেশ্যে এ মামলা করা হয়েছে। মামলায় যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি এ সম্পর্কে কিছুই জানি না।