Dhaka ০৬:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জন্মভূমির কথা মনে করে কাঁদলেন কাঁদালেন দেবব্রত চক্রবর্তী দম্পতি

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৯:১৫:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মার্চ ২০২৩
  • / ১১৫৮ জন সংবাদটি পড়েছেন

 কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক দেবব্রত চক্রবর্তীর জন্ম বাংলাদেশের রাজবাড়ী জেলায়। তার স্ত্রী শুচিস্মিতা চক্রবর্তীর বাপ-দাদার ভিটেমাটি ছিল ফরিদপুর জেলায়। তারা এখন প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের নাগরিক। দীর্ঘ প্রায় ৫০ বছর পর এসেছেন প্রিয় জন্মভূমিতে। রাজবাড়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে একটি অনুষ্ঠানে জন্মভূমির স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তারা নিজেরা কাঁদলেন। অন্যদেরও কাঁদালেন। বুধবার রাতে রাজবাড়ী সাহিত্য পরিষদের আয়োজনে সাহিত্য বৈঠকে ‘আমাদের জীবনে রবীন্দ্রনাথ’ বিষয়ে আলোচনার জন্য তাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

রবীন্দ্রনাথের উপর আলোচনায় অংশ নিয়ে দেবব্রত চক্রবর্তী বলেন, তার বয়স যখন ১২ বছর তখন ইন্ডিয়া চলে যান বাবা-মায়ের হাত ধরে। এরপর ১৯৭৩ সালে একবার এসেছিলেন। বাংলাদেশের মানুষ, প্রকৃতি, মাটি সব তাকে টানে। তার মনে পড়ে শিশুকালের কথা। যেখানে তার জন্ম হয়েছিল সেখানে গিয়ে তিনি ঘুরে এসেছেন। সেখানকার এক মুঠো মাটি তিনি সাথে করে কলকাতায় নিয়ে যাচ্ছেন। এসময় আবেগাপ্লুত হয়ে তিনি কেঁদে ফেলেন।

শুচিস্মিতা চক্রবর্তী বলেন, আমার বাপ-দাদার ভিটেমাটি ছিল ফরিদপুরে। বাবা-মায়ের কাছে সেখানকার কত গল্প শুনেছেন। সেসব স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনিও কেঁদে ফেলেন।

এ অনুুষ্ঠানে অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অ্যড. দেবাহুতি চক্রবর্তী, রাজবাড়ী একাডেমির সভাপতি সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান, সাবেক জেলা শিক্ষা অফিসার আজিজা খানম, সাবেক শিক্ষক সাইদা খানম প্রমুখ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রাজবাড়ী সাহিত্য পরিষদের আহ্বায়ক কবি খোকন মাহমুদ।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

জন্মভূমির কথা মনে করে কাঁদলেন কাঁদালেন দেবব্রত চক্রবর্তী দম্পতি

প্রকাশের সময় : ০৯:১৫:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মার্চ ২০২৩

 কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক দেবব্রত চক্রবর্তীর জন্ম বাংলাদেশের রাজবাড়ী জেলায়। তার স্ত্রী শুচিস্মিতা চক্রবর্তীর বাপ-দাদার ভিটেমাটি ছিল ফরিদপুর জেলায়। তারা এখন প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের নাগরিক। দীর্ঘ প্রায় ৫০ বছর পর এসেছেন প্রিয় জন্মভূমিতে। রাজবাড়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে একটি অনুষ্ঠানে জন্মভূমির স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তারা নিজেরা কাঁদলেন। অন্যদেরও কাঁদালেন। বুধবার রাতে রাজবাড়ী সাহিত্য পরিষদের আয়োজনে সাহিত্য বৈঠকে ‘আমাদের জীবনে রবীন্দ্রনাথ’ বিষয়ে আলোচনার জন্য তাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

রবীন্দ্রনাথের উপর আলোচনায় অংশ নিয়ে দেবব্রত চক্রবর্তী বলেন, তার বয়স যখন ১২ বছর তখন ইন্ডিয়া চলে যান বাবা-মায়ের হাত ধরে। এরপর ১৯৭৩ সালে একবার এসেছিলেন। বাংলাদেশের মানুষ, প্রকৃতি, মাটি সব তাকে টানে। তার মনে পড়ে শিশুকালের কথা। যেখানে তার জন্ম হয়েছিল সেখানে গিয়ে তিনি ঘুরে এসেছেন। সেখানকার এক মুঠো মাটি তিনি সাথে করে কলকাতায় নিয়ে যাচ্ছেন। এসময় আবেগাপ্লুত হয়ে তিনি কেঁদে ফেলেন।

শুচিস্মিতা চক্রবর্তী বলেন, আমার বাপ-দাদার ভিটেমাটি ছিল ফরিদপুরে। বাবা-মায়ের কাছে সেখানকার কত গল্প শুনেছেন। সেসব স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনিও কেঁদে ফেলেন।

এ অনুুষ্ঠানে অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অ্যড. দেবাহুতি চক্রবর্তী, রাজবাড়ী একাডেমির সভাপতি সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান, সাবেক জেলা শিক্ষা অফিসার আজিজা খানম, সাবেক শিক্ষক সাইদা খানম প্রমুখ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রাজবাড়ী সাহিত্য পরিষদের আহ্বায়ক কবি খোকন মাহমুদ।