Dhaka ১১:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আন্তঃনগর ও কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবিতে খানখানাপুরে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ১১:২৩:০৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০২৪
  • / ১০৩৩ জন সংবাদটি পড়েছেন

 রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর রেল স্টেশনে সকল আন্তঃনগর ট্রেন ও কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবিতে শুক্রবার সকালে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। এসময় ঢাকাগামী আন্তঃনগর মধুুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের গতিরোধ করে তারা।

মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ খানখানাপুর, খানখানাপুর বাজার ব্যবসায়ী পরিষদ এবং আমরা গর্বিত খানখানাপুরবাসী নামক তিনটি ব্যানারে স্থানীয় এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে বেলা ১১টার দিকে খানখানাপুর রেল স্টেশনে মানববন্ধনে অংশ নেয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনটি খানখানাপুর রেল স্টেশনে পৌঁছালে আন্দোলনকারীরা রেল লাইনের উপর দাঁড়িয়ে পড়ে। এসময় ট্রেনটি সেখানে থেমে যায়। ১০ মিনিট পর আন্দোলনকারীরা সেখান থেকে সরে গেলে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

পরে এক সমাবেশে বক্তৃতা করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন মিয়া, খানখানাপুর বাজার পরিষদের সভাপতি মামুনুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা মো. বজলুর রশিদ, আতিক আল আলম, কাওসার মাহমুদ, মাকসুদুর রহমান শাওন, আলমগীর হোসেন, স্থানীয় যুবলীগ নেতা  সাইফুল ইসলাম সাউদ, ছাত্রলীগ নেতা জাহিদ হাসান সৌরভ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, খানখানাপুর রেল স্টেশনের গুরুত্ব রয়েছে বহুকাল ধরে। পাট ব্যবসার জন্য জায়গাটি বিখ্যাত। কিন্তু কোনো আন্তঃনগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি এ স্টেশনে নেই। এটি খানখানাপুরবাসীর জন্য দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তারা সকল আন্তঃনগর ও কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবি জানান।

আন্তঃনগর মধুমতি ট্রেনে দায়িত্বরত গার্ড মো. শরীফুল ইসলাম জানান, আন্দোলকারীরা লাল পতাকা উড়িয়ে ট্রেনটি থামায়। অনেক মানুষের সমাবেশ থাকায় তারা ট্রেনটি থামাতে বাধ্য হন। ১০ মিনিট পর আন্দোলনকারীরা সরে গেলে ট্রেনটি গন্তব্যে ছেড়ে যায়।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

আন্তঃনগর ও কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবিতে খানখানাপুরে মানববন্ধন

প্রকাশের সময় : ১১:২৩:০৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০২৪

 রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর রেল স্টেশনে সকল আন্তঃনগর ট্রেন ও কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবিতে শুক্রবার সকালে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। এসময় ঢাকাগামী আন্তঃনগর মধুুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনের গতিরোধ করে তারা।

মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ খানখানাপুর, খানখানাপুর বাজার ব্যবসায়ী পরিষদ এবং আমরা গর্বিত খানখানাপুরবাসী নামক তিনটি ব্যানারে স্থানীয় এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে বেলা ১১টার দিকে খানখানাপুর রেল স্টেশনে মানববন্ধনে অংশ নেয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনটি খানখানাপুর রেল স্টেশনে পৌঁছালে আন্দোলনকারীরা রেল লাইনের উপর দাঁড়িয়ে পড়ে। এসময় ট্রেনটি সেখানে থেমে যায়। ১০ মিনিট পর আন্দোলনকারীরা সেখান থেকে সরে গেলে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

পরে এক সমাবেশে বক্তৃতা করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন মিয়া, খানখানাপুর বাজার পরিষদের সভাপতি মামুনুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা মো. বজলুর রশিদ, আতিক আল আলম, কাওসার মাহমুদ, মাকসুদুর রহমান শাওন, আলমগীর হোসেন, স্থানীয় যুবলীগ নেতা  সাইফুল ইসলাম সাউদ, ছাত্রলীগ নেতা জাহিদ হাসান সৌরভ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, খানখানাপুর রেল স্টেশনের গুরুত্ব রয়েছে বহুকাল ধরে। পাট ব্যবসার জন্য জায়গাটি বিখ্যাত। কিন্তু কোনো আন্তঃনগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি এ স্টেশনে নেই। এটি খানখানাপুরবাসীর জন্য দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তারা সকল আন্তঃনগর ও কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবি জানান।

আন্তঃনগর মধুমতি ট্রেনে দায়িত্বরত গার্ড মো. শরীফুল ইসলাম জানান, আন্দোলকারীরা লাল পতাকা উড়িয়ে ট্রেনটি থামায়। অনেক মানুষের সমাবেশ থাকায় তারা ট্রেনটি থামাতে বাধ্য হন। ১০ মিনিট পর আন্দোলনকারীরা সরে গেলে ট্রেনটি গন্তব্যে ছেড়ে যায়।