Dhaka 4:08 pm, Wednesday, 8 February 2023

মাকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা : প্রশাসনের হস্তক্ষেপে ৬দিন পরে ঘরে গেলেন বৃদ্ধা নয়নতারা

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : 06:40:13 pm, Saturday, 8 August 2020
  • / 1456 জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ পারিবারিক বিরোধের জের ধরে বৃদ্ধা মাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা দিয়ে কর্মস্থলে চলে যান ছেলে সুমন। ছয়দিন পর গতকাল শনিবার প্রশাসনের সহায়তায় ঘরে উঠতে পেরেছেন মা নয়নতারা সেন। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জঙ্গল ইউনিয়নের জঙ্গল গ্রামে। ছেলে সুমন একটি ওষুধ কোম্পানীতে চাকরী সূত্রে পাংশায় বসবাস করেন। নয়নতারা সেন একই গ্রামের প্রয়াত ভবেন্দ্রনাথ সেনের স্ত্রী।

জানা গেছে, নয়নতারা সেনের স্বামী ভবেন্দ্রনাথ সেন এক বছর আগে মৃত্যুবরণ করেন। তাদের দুই মেয়ে ও এক ছেলে। দুই মেয়ে বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে থাকে। ছেলে সুমন তার স্ত্রীকে নিয়ে থাকেন পাংশায়।  মা নয়নতারাকে সুমন ঠিকমতো ভরণপোষণ দেননা বলেও অভিযোগ রয়েছে। পারিবারিক বিরোধের জের ধরে গত সোমবার সুমন তার মাকে ঘর থেকে বের করে তালা লাগিয়ে দিয়ে চলে যান। এরপর মা নয়নতারা আত্মীয় স্বজন ও প্রতিবেশির বাড়িতে আশ্রয়ে ছিলেন।

সাংবাদিকদের কাছে নয়নতারা বলেন, আমার ছেলে সুমন আমাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে চলে গেছে। তারপর একটা খোঁজও নেয়নি। কোথায় থাকছি। কী খাচ্ছি কেউ কোনো খবর নিচ্ছে না। বিভিন্ন মানুষের বাড়িতে কোনোমতে রাত কাটাতে হচ্ছে আমার।

শনিবার নয়নতারা সেনের মোবাইল ফোনে কল করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে কাছে থাকা ইউপি মেম্বার অভিমন্যুকে দেন। অভিমন্যু জানান, ইউএনও সাহেবের মাধ্যমে চাবি এনে ঘর খুলে বৃদ্ধা নয়নতারাকে ঘরে তুলে দিয়েছেন। তাদের অঢেল সম্পত্তি রয়েছে। জমির ফসল বিক্রি করেই চলে নয়নতারা সেনের জীবন। পারিবারিক কিছু ঝামেলার কারণে ছেলে সুমন তার মাকে তালা দিয়ে চলে যায় বলে শুনেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন এলাকাবাসী জানান, নয়নতারা সেন তার অনেক দুঃখ কষ্টের কথা তাকে জানিয়েছেন।

বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম জানান, বিষয়টি জানার পর ছেলে সুমনের কাছ থেকে চাবি এনে ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ঘর খুলে দেয়া হয়েছে। বিষয়টির মীমাংসা হয়ে গেছে।

অভিযুক্ত সুমন সেনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি  উল্টো প্রশ্ন করেন, কবেকার ঘটনা? সোমবার তালা দিয়েছেন বলার পর বলেন, এখন খোঁজ নেন। ঘর খুলে দেয়া হয়েছে। ইউএনও’র হস্তক্ষেপের পর ঘর খুলে দেয়া হয়েছে- এমনটি বলার পর ‘আমি এখন ব্যস্ত আছি’ বলে ফোন বিচ্ছিন্ন করে দেন।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

মাকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা : প্রশাসনের হস্তক্ষেপে ৬দিন পরে ঘরে গেলেন বৃদ্ধা নয়নতারা

প্রকাশের সময় : 06:40:13 pm, Saturday, 8 August 2020

জনতার আদালত অনলাইন ॥ পারিবারিক বিরোধের জের ধরে বৃদ্ধা মাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা দিয়ে কর্মস্থলে চলে যান ছেলে সুমন। ছয়দিন পর গতকাল শনিবার প্রশাসনের সহায়তায় ঘরে উঠতে পেরেছেন মা নয়নতারা সেন। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জঙ্গল ইউনিয়নের জঙ্গল গ্রামে। ছেলে সুমন একটি ওষুধ কোম্পানীতে চাকরী সূত্রে পাংশায় বসবাস করেন। নয়নতারা সেন একই গ্রামের প্রয়াত ভবেন্দ্রনাথ সেনের স্ত্রী।

জানা গেছে, নয়নতারা সেনের স্বামী ভবেন্দ্রনাথ সেন এক বছর আগে মৃত্যুবরণ করেন। তাদের দুই মেয়ে ও এক ছেলে। দুই মেয়ে বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে থাকে। ছেলে সুমন তার স্ত্রীকে নিয়ে থাকেন পাংশায়।  মা নয়নতারাকে সুমন ঠিকমতো ভরণপোষণ দেননা বলেও অভিযোগ রয়েছে। পারিবারিক বিরোধের জের ধরে গত সোমবার সুমন তার মাকে ঘর থেকে বের করে তালা লাগিয়ে দিয়ে চলে যান। এরপর মা নয়নতারা আত্মীয় স্বজন ও প্রতিবেশির বাড়িতে আশ্রয়ে ছিলেন।

সাংবাদিকদের কাছে নয়নতারা বলেন, আমার ছেলে সুমন আমাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে চলে গেছে। তারপর একটা খোঁজও নেয়নি। কোথায় থাকছি। কী খাচ্ছি কেউ কোনো খবর নিচ্ছে না। বিভিন্ন মানুষের বাড়িতে কোনোমতে রাত কাটাতে হচ্ছে আমার।

শনিবার নয়নতারা সেনের মোবাইল ফোনে কল করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে কাছে থাকা ইউপি মেম্বার অভিমন্যুকে দেন। অভিমন্যু জানান, ইউএনও সাহেবের মাধ্যমে চাবি এনে ঘর খুলে বৃদ্ধা নয়নতারাকে ঘরে তুলে দিয়েছেন। তাদের অঢেল সম্পত্তি রয়েছে। জমির ফসল বিক্রি করেই চলে নয়নতারা সেনের জীবন। পারিবারিক কিছু ঝামেলার কারণে ছেলে সুমন তার মাকে তালা দিয়ে চলে যায় বলে শুনেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন এলাকাবাসী জানান, নয়নতারা সেন তার অনেক দুঃখ কষ্টের কথা তাকে জানিয়েছেন।

বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম জানান, বিষয়টি জানার পর ছেলে সুমনের কাছ থেকে চাবি এনে ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ঘর খুলে দেয়া হয়েছে। বিষয়টির মীমাংসা হয়ে গেছে।

অভিযুক্ত সুমন সেনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি  উল্টো প্রশ্ন করেন, কবেকার ঘটনা? সোমবার তালা দিয়েছেন বলার পর বলেন, এখন খোঁজ নেন। ঘর খুলে দেয়া হয়েছে। ইউএনও’র হস্তক্ষেপের পর ঘর খুলে দেয়া হয়েছে- এমনটি বলার পর ‘আমি এখন ব্যস্ত আছি’ বলে ফোন বিচ্ছিন্ন করে দেন।