Dhaka ১১:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে গঙ্গাস্নান অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৭:০৭:২৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৫১ জন সংবাদটি পড়েছেন

রাজবাড়ীতে শনিবার গঙ্গাস্নান উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজবাড়ী শহরতলীর গোদারবাজার পদ্মা নদীতে ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত এই স্নান অনুষ্ঠিত হয়। দূর দুরান্ত থেকে আসা হাজার হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী নারীÑপুরুষ, তরুণÑতরুণী পুণ্য লাভের আশায় ফুল, বেলপাতা, তুলসীপাতা, কলাপাতা দিয়ে গঙ্গা দেবীর আরাধনা করেন। পরে তারা পুরোহিতদের চাল, টাকা পয়সাও দান করেন।

সনাতন ধর্মালম্বীদের মতে, পাপমুক্ত হতে গঙ্গাদেবীকে তুষ্ট করতেই যুগ যুগ ধরে প্রতি বছর মাঘী পূর্ণিমা তিথিতে রাজবাড়ীতে এ স্নান অনুষ্ঠিত হয়। গঙ্গাকে নদীর মূর্তিস্বরূপ হিন্দু দেবী মনে করা হয়ে থাকে। হিন্দুধর্মে এই দেবী বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্থানের অধিকারিণী। হিন্দুরা বিশ্বাস করেন গঙ্গায় স্নান করলে সমস্ত পাপ মুছে যায় এবং জীব মুক্তিলাভ করে। অনেকে আত্মীয়স্বজনের দেহাবশেষ বহু দূরদূরান্ত থেকে বয়ে এনে গঙ্গায় বিসর্জন দেন। তাঁরা মনে করেন, এর ফলে মৃত ব্যক্তির আত্মা স্বর্গে গমন করে।

মাঘী পূর্ণিমা উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও লক্ষীকোল হরিসভা মন্দির প্রাঙ্গনে শনিবার ভোর থেকে শুরু হয়েছে ৪০ প্রহর ব্যাপী নামযজ্ঞ। আগামী বুধবার পর্যন্ত চলবে এ নামযজ্ঞ। দেশের আটটি খ্যাতনামা কীর্তনীয়া দল নামযজ্ঞে নামসুধা পরিবেশন করবে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীতে গঙ্গাস্নান অনুষ্ঠিত

প্রকাশের সময় : ০৭:০৭:২৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাজবাড়ীতে শনিবার গঙ্গাস্নান উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজবাড়ী শহরতলীর গোদারবাজার পদ্মা নদীতে ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত এই স্নান অনুষ্ঠিত হয়। দূর দুরান্ত থেকে আসা হাজার হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী নারীÑপুরুষ, তরুণÑতরুণী পুণ্য লাভের আশায় ফুল, বেলপাতা, তুলসীপাতা, কলাপাতা দিয়ে গঙ্গা দেবীর আরাধনা করেন। পরে তারা পুরোহিতদের চাল, টাকা পয়সাও দান করেন।

সনাতন ধর্মালম্বীদের মতে, পাপমুক্ত হতে গঙ্গাদেবীকে তুষ্ট করতেই যুগ যুগ ধরে প্রতি বছর মাঘী পূর্ণিমা তিথিতে রাজবাড়ীতে এ স্নান অনুষ্ঠিত হয়। গঙ্গাকে নদীর মূর্তিস্বরূপ হিন্দু দেবী মনে করা হয়ে থাকে। হিন্দুধর্মে এই দেবী বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্থানের অধিকারিণী। হিন্দুরা বিশ্বাস করেন গঙ্গায় স্নান করলে সমস্ত পাপ মুছে যায় এবং জীব মুক্তিলাভ করে। অনেকে আত্মীয়স্বজনের দেহাবশেষ বহু দূরদূরান্ত থেকে বয়ে এনে গঙ্গায় বিসর্জন দেন। তাঁরা মনে করেন, এর ফলে মৃত ব্যক্তির আত্মা স্বর্গে গমন করে।

মাঘী পূর্ণিমা উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও লক্ষীকোল হরিসভা মন্দির প্রাঙ্গনে শনিবার ভোর থেকে শুরু হয়েছে ৪০ প্রহর ব্যাপী নামযজ্ঞ। আগামী বুধবার পর্যন্ত চলবে এ নামযজ্ঞ। দেশের আটটি খ্যাতনামা কীর্তনীয়া দল নামযজ্ঞে নামসুধা পরিবেশন করবে।