Dhaka ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
কালুখালী

ওয়াজ মাহফিল থেকে ডেকে নিয়ে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৯:০৪:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৪০ জন সংবাদটি পড়েছেন

 ওয়াজ মাহফিল থেকে ডেকে নিয়ে শরীফ খান নামে এক ব্যবসায়ীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের রূপসা ¯øুুইচ গেট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শরীফ একই ইউনিয়নের পশ্চিম ধানবাড়িয়া গ্রামের হাকিম খানের ছেলে। ¯øুইচ গেট বাজারে তিনি স্টেশনারী, বিকাশ লেনদেন, ফ্লেক্সি লোডের ব্যবসা করতেন। এ ঘটনায় একজনকে আটকের কথা জানিয়েছে পুলিশ। তবে, কারা কেন তাকে হত্যা করেছে তা এখনও জানা যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে রূপসা ¯øুইচ গেট বাজার সংলগ্ন গায়েবী মসজিদে বার্র্ষিক ওয়াজ মাহফিল শুনতে যান শরীফ। রাত সাড়ে ১১টার দিকে এক ব্যক্তি শরিফকে ফোন করলে তিনি মাহফিল থেকে চলে যান। বাজারের একটি সেলুনের সামনে পৌছালে একদল দুর্বৃত্ত তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। তার মাথা ও ঘাড়ে মোট তিনটি কোপের চিহ্ন রয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা সিদ্দিক মিয়া বলেন, মাহফিল শেষ না হতেই রাত এগারোটার দিকে শরিফ চলে আসে। পরে রূপসা বাজারে তার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা।

বাজারের ব্যবসায়ী কুদ্দুস শেখ জানান, রাতে তারা খবর পান বাজারে কাকে যেন খুন করা হয়েছে। এরপর গিয়ে দেখেন একটি দোকানের বারান্দায় শরীফের লাশ পড়ে আছে। চারপাশে প্রচুর রক্ত। কিছুক্ষণ পর পুলিশ চলে আসে।

রতনদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ২ নং ওয়ার্ড সদস্য মো. মুক্তার হোসেন জানান, শরীফকে তিনি ছোট বেলা থেকে চেনেন। সে খুব শান্ত শিষ্ট ভদ্র স্বভাবের। কোনো ধরনের রাজনীতিতে সে জড়িত ছিলনা। এলাকায় কারো সাথে কোন দ্ব›দ্ব বিবাদও নেই। তাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে শুনে একেবারে হতভম্ব হয়ে গেছেন। তিনি আরও জানান, শরীফ বিকাশের এজেন্ট ছিলেন। এজন্য সব সময় তার কাছে টাকা থাকতো। শরীফের পকেটে ৮৩ হাজার টাকা  ও তিনটি মোবাইল ফোন ছিল। কিন্তু তাকে খুন করার পর দুর্বৃত্তরা সেই টাকা নেয়নি। এজন্য ধারণা করছেন, শরীফকে অন্য কোন কারণে খুন করা হয়ে থাকতে পারে।

নিহতের স্ত্রী আছমা বেগম জানান, শরিফ রাত সাড়ে ৮টার দিকে দোকান বন্ধ করে বাড়িতে ফেরেন। রাতের খাবার খেয়ে তিনি মাহফিলে যান। পরে শুনতে পান তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। তার স্বামীর সঙ্গে কারো কোনো শত্রæতা ছিল না। কী কারণে তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি ধারণা করতে পারছেন না। শরীফকে যারা হত্যা করেছে তাদের বিচার চান তিনি।

কালুখালী থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, কারা কেন শরীফকে হত্যা করেছে তা এখনও জানা যায়নি। এ ঘটনায় তরিকুল নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন ও হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারে কাজ করছে পুলিশ।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

কালুখালী

ওয়াজ মাহফিল থেকে ডেকে নিয়ে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশের সময় : ০৯:০৪:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 ওয়াজ মাহফিল থেকে ডেকে নিয়ে শরীফ খান নামে এক ব্যবসায়ীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের রূপসা ¯øুুইচ গেট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শরীফ একই ইউনিয়নের পশ্চিম ধানবাড়িয়া গ্রামের হাকিম খানের ছেলে। ¯øুইচ গেট বাজারে তিনি স্টেশনারী, বিকাশ লেনদেন, ফ্লেক্সি লোডের ব্যবসা করতেন। এ ঘটনায় একজনকে আটকের কথা জানিয়েছে পুলিশ। তবে, কারা কেন তাকে হত্যা করেছে তা এখনও জানা যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে রূপসা ¯øুইচ গেট বাজার সংলগ্ন গায়েবী মসজিদে বার্র্ষিক ওয়াজ মাহফিল শুনতে যান শরীফ। রাত সাড়ে ১১টার দিকে এক ব্যক্তি শরিফকে ফোন করলে তিনি মাহফিল থেকে চলে যান। বাজারের একটি সেলুনের সামনে পৌছালে একদল দুর্বৃত্ত তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। তার মাথা ও ঘাড়ে মোট তিনটি কোপের চিহ্ন রয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা সিদ্দিক মিয়া বলেন, মাহফিল শেষ না হতেই রাত এগারোটার দিকে শরিফ চলে আসে। পরে রূপসা বাজারে তার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা।

বাজারের ব্যবসায়ী কুদ্দুস শেখ জানান, রাতে তারা খবর পান বাজারে কাকে যেন খুন করা হয়েছে। এরপর গিয়ে দেখেন একটি দোকানের বারান্দায় শরীফের লাশ পড়ে আছে। চারপাশে প্রচুর রক্ত। কিছুক্ষণ পর পুলিশ চলে আসে।

রতনদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ২ নং ওয়ার্ড সদস্য মো. মুক্তার হোসেন জানান, শরীফকে তিনি ছোট বেলা থেকে চেনেন। সে খুব শান্ত শিষ্ট ভদ্র স্বভাবের। কোনো ধরনের রাজনীতিতে সে জড়িত ছিলনা। এলাকায় কারো সাথে কোন দ্ব›দ্ব বিবাদও নেই। তাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে শুনে একেবারে হতভম্ব হয়ে গেছেন। তিনি আরও জানান, শরীফ বিকাশের এজেন্ট ছিলেন। এজন্য সব সময় তার কাছে টাকা থাকতো। শরীফের পকেটে ৮৩ হাজার টাকা  ও তিনটি মোবাইল ফোন ছিল। কিন্তু তাকে খুন করার পর দুর্বৃত্তরা সেই টাকা নেয়নি। এজন্য ধারণা করছেন, শরীফকে অন্য কোন কারণে খুন করা হয়ে থাকতে পারে।

নিহতের স্ত্রী আছমা বেগম জানান, শরিফ রাত সাড়ে ৮টার দিকে দোকান বন্ধ করে বাড়িতে ফেরেন। রাতের খাবার খেয়ে তিনি মাহফিলে যান। পরে শুনতে পান তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। তার স্বামীর সঙ্গে কারো কোনো শত্রæতা ছিল না। কী কারণে তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি ধারণা করতে পারছেন না। শরীফকে যারা হত্যা করেছে তাদের বিচার চান তিনি।

কালুখালী থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, কারা কেন শরীফকে হত্যা করেছে তা এখনও জানা যায়নি। এ ঘটনায় তরিকুল নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন ও হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারে কাজ করছে পুলিশ।