Dhaka ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ছাগল চুরি দেখে ফেলায় হত্যা করা হয় গ্রাম পুলিশ রনজিৎকে

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৯:২৫:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৩৫ জন সংবাদটি পড়েছেন

ছাগল চুরি দেখে ফেলায় সংসদ নির্বাচনের আগের রাতে হত্যা করা হয় গ্রাম পুলিশ রনজিৎ দেকে।  শুক্রবার রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের কার্যায়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে একথা জানান পুলিশ সুপার জিএম আবুল কালাম আজাদ। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অভিযোগে মুক্তার শেখ নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া চুরির কাজে ব্যবহৃত একটি ইজিবাইক ও একটি চোরাই ছাগলও উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার মুক্তার ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার ঝাউকাঠি গ্রামের আজিদ শেখের ছেলে। নিহত রনজিৎ দে বালিয়াকান্দি উপজেলার চর আড়কান্দি গ্রামের শিবেন্দ্রনাথ দের ছেলে। গত ৬ জানুয়ারি দিবাগত রাতে উপজেলার চরআড়কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র পাহারার দায়িত্বে ছিলেন তিনি। পরদিন ৭ জানুয়ারি ভোটের দিন সকালে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার জিএম আবুল কালাম আজাদ জানান, রনজিৎ দে হত্যার ঘটনায় গত ৯ জানুয়ারি বালিয়াকান্দি থানায় মামলা হয়। এটি ছিল একটি ক্লুলেস মামলা। ঘটনার রাতে চরআড়কান্দি এলাকায় দুটি বাড়ি থেকে তিনটি ছাগল চুরির ঘটনা ঘটে। এ বিষয়টিকে সামনে রেখে পুলিশ তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে। এক পর্যায়ে পুলিশ রহস্য উদ্ঘাটনে সফল হয়। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত অভিযোগে মুক্তারকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। পুলিশ সুপার জানান, গ্রেপ্তার মুক্তারের শ্বশুরবাড়ি চর আড়কান্দি গ্রামে হওয়ায়  শ্বশুরবাড়িতে যাতায়াতের সুবাদে ওই গ্রামের দুই ব্যক্তির সঙ্গে মুক্তারের ঘনিষ্ঠতা হয়। গত ৬ জানুয়ারি দিবাগত রাতে তারা একসঙ্গে মাদক সেবন করে। এরপর চর আড়কান্দি গ্রামের দুজনের বাড়ি থেকে ছাগল চুরি করে অটোরিকশাযোগে চর আড়কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছনে বাগানে নিয়ে যায়। ওই সময় নির্বাচন উপলক্ষে পুলিশি টহল চলায় ওই বাগানেই তারা ভোর হওয়ার অপেক্ষায় প্রহর গুনছিল। এসময় গ্রাম পুলিশ রনজিৎ দে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে তাদের দেখে ফেলে। চুরির ঘটনা যাতে প্রকাশ না পায় এজন্য তারা রনজিৎকে টাকার প্রলোভন দেখায়। রনজিৎ রাজী না হওয়ায় তাকে শ^াসরোধে হত্যা করে। ঘটনার সাথে আরও দুজন জড়িত। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।

আসামি মুক্তার শেখকে শুক্রবার রাজবাড়ীর আদালতে চালান করা হয়েছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

ছাগল চুরি দেখে ফেলায় হত্যা করা হয় গ্রাম পুলিশ রনজিৎকে

প্রকাশের সময় : ০৯:২৫:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ছাগল চুরি দেখে ফেলায় সংসদ নির্বাচনের আগের রাতে হত্যা করা হয় গ্রাম পুলিশ রনজিৎ দেকে।  শুক্রবার রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের কার্যায়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে একথা জানান পুলিশ সুপার জিএম আবুল কালাম আজাদ। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অভিযোগে মুক্তার শেখ নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া চুরির কাজে ব্যবহৃত একটি ইজিবাইক ও একটি চোরাই ছাগলও উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার মুক্তার ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার ঝাউকাঠি গ্রামের আজিদ শেখের ছেলে। নিহত রনজিৎ দে বালিয়াকান্দি উপজেলার চর আড়কান্দি গ্রামের শিবেন্দ্রনাথ দের ছেলে। গত ৬ জানুয়ারি দিবাগত রাতে উপজেলার চরআড়কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র পাহারার দায়িত্বে ছিলেন তিনি। পরদিন ৭ জানুয়ারি ভোটের দিন সকালে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার জিএম আবুল কালাম আজাদ জানান, রনজিৎ দে হত্যার ঘটনায় গত ৯ জানুয়ারি বালিয়াকান্দি থানায় মামলা হয়। এটি ছিল একটি ক্লুলেস মামলা। ঘটনার রাতে চরআড়কান্দি এলাকায় দুটি বাড়ি থেকে তিনটি ছাগল চুরির ঘটনা ঘটে। এ বিষয়টিকে সামনে রেখে পুলিশ তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে। এক পর্যায়ে পুলিশ রহস্য উদ্ঘাটনে সফল হয়। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত অভিযোগে মুক্তারকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। পুলিশ সুপার জানান, গ্রেপ্তার মুক্তারের শ্বশুরবাড়ি চর আড়কান্দি গ্রামে হওয়ায়  শ্বশুরবাড়িতে যাতায়াতের সুবাদে ওই গ্রামের দুই ব্যক্তির সঙ্গে মুক্তারের ঘনিষ্ঠতা হয়। গত ৬ জানুয়ারি দিবাগত রাতে তারা একসঙ্গে মাদক সেবন করে। এরপর চর আড়কান্দি গ্রামের দুজনের বাড়ি থেকে ছাগল চুরি করে অটোরিকশাযোগে চর আড়কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছনে বাগানে নিয়ে যায়। ওই সময় নির্বাচন উপলক্ষে পুলিশি টহল চলায় ওই বাগানেই তারা ভোর হওয়ার অপেক্ষায় প্রহর গুনছিল। এসময় গ্রাম পুলিশ রনজিৎ দে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে তাদের দেখে ফেলে। চুরির ঘটনা যাতে প্রকাশ না পায় এজন্য তারা রনজিৎকে টাকার প্রলোভন দেখায়। রনজিৎ রাজী না হওয়ায় তাকে শ^াসরোধে হত্যা করে। ঘটনার সাথে আরও দুজন জড়িত। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।

আসামি মুক্তার শেখকে শুক্রবার রাজবাড়ীর আদালতে চালান করা হয়েছে।