Dhaka ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বাবার লাঠির আঘাতে মেয়ের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৬:৪১:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৩৮ জন সংবাদটি পড়েছেন

  বাবার লাঠির আঘাতে পাখিলা আক্তার পাখি (১৮) নামে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে। রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মৌরাট ইউনিয়নের তেলিগাতি গ্রামে বুধবার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ অভিযুক্ত বাবা কালাম মিয়া কালুকে আটক করেছে। নিহত পাখি চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী ও পাংশা থানা সূত্র জানায়, পাখির সাথে এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। কিন্তু পাখির পরিবার বিষয়টিকে ভালোভাবে নেয়নি। কালাম মিয়া বুধবার বাজারে গেলে স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি বিষয়টি নিয়ে তার কাছে অভিযোগ করে। রাতে কালাম মিয়া বাড়ি ফিরে পাখিকে গালমন্দ করলে সে রেগে বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে উদ্যত হয়। এসময় কালাম মিয়া পেছন থেকে পাখিকে একটি লাঠি দিয়ে আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে স্থানীয়রা পাখিকে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মৌরাট ইউনিয়নের সংরক্ষিত  নারী আসনের সদস্য হাসিনা বেগম জানান, পাখির সাথে একটি ছেলের সম্পর্ক ছিল। এটি তার পরিবার মেনে নিচ্ছিল না। একারণে পাখির বাবা পাখিকে গালমন্দ ও মারধর করেছে বলে শুনেছেন।

পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. সুজাউদ্দিন সোহাগ জানান, নিহত তরুণীর মাথা ও ঘাড়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল। যে দুজন নারী তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে তারা কেউ রোগীর ঘটনা কিছুই বলেননি।  মারা গেছে শোনার পর তাদের পাওয়া যায়নি। আঘাতের কারণেই তরুণীর মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পাংশা থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, পারিবারিক কলহের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি শুনেছেন। পুলিশ অভিযুক্ত কালাম মিয়াকে আটক করেছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

বাবার লাঠির আঘাতে মেয়ের মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ০৬:৪১:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

  বাবার লাঠির আঘাতে পাখিলা আক্তার পাখি (১৮) নামে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে। রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মৌরাট ইউনিয়নের তেলিগাতি গ্রামে বুধবার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ অভিযুক্ত বাবা কালাম মিয়া কালুকে আটক করেছে। নিহত পাখি চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী ও পাংশা থানা সূত্র জানায়, পাখির সাথে এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। কিন্তু পাখির পরিবার বিষয়টিকে ভালোভাবে নেয়নি। কালাম মিয়া বুধবার বাজারে গেলে স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি বিষয়টি নিয়ে তার কাছে অভিযোগ করে। রাতে কালাম মিয়া বাড়ি ফিরে পাখিকে গালমন্দ করলে সে রেগে বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে উদ্যত হয়। এসময় কালাম মিয়া পেছন থেকে পাখিকে একটি লাঠি দিয়ে আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে স্থানীয়রা পাখিকে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মৌরাট ইউনিয়নের সংরক্ষিত  নারী আসনের সদস্য হাসিনা বেগম জানান, পাখির সাথে একটি ছেলের সম্পর্ক ছিল। এটি তার পরিবার মেনে নিচ্ছিল না। একারণে পাখির বাবা পাখিকে গালমন্দ ও মারধর করেছে বলে শুনেছেন।

পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. সুজাউদ্দিন সোহাগ জানান, নিহত তরুণীর মাথা ও ঘাড়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল। যে দুজন নারী তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে তারা কেউ রোগীর ঘটনা কিছুই বলেননি।  মারা গেছে শোনার পর তাদের পাওয়া যায়নি। আঘাতের কারণেই তরুণীর মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পাংশা থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, পারিবারিক কলহের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি শুনেছেন। পুলিশ অভিযুক্ত কালাম মিয়াকে আটক করেছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।