Dhaka ১০:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শাস্ত্রীয় সংগীতে মুগ্ধ শ্রোতা

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৯:৩৫:৩৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩
  • / ১১০১ জন সংবাদটি পড়েছেন

তানপুরার ঝংকার, হারমোনিয়ামের মনোরম সুর আর তবলার তালে শাস্ত্রীয় সংগীতে মন্ত্রমুগ্ধ বনে গিয়েছিলেন দর্শক শ্রোতা। বুধবার রাতে রাজবাড়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আবোল তাবোল শিশু সংগঠন আয়োজন করে শাস্ত্রীয় সংগীত সন্ধ্যার। শাস্ত্রীয় সংগীত পরিবেশন করেন প্রখ্যাত উচ্চাঙ্গ সংগীত শিল্পী পন্ডিত শ্যামসুন্দর গোস্বামী। তাকে তবলায় সংগত দেন পন্ডিত শুভ্রাংশু চক্রবর্তী।

দুজনের অংশগ্রহণে শাস্ত্রীয় সঙ্গীত পরিবেশনাকালে শিল্পকলা মিলনায়তনে ছিল পিনপতন নীরবতা। যেন মন্ত্রমুগ্ধের মত উপভোগ করেছে তাদের সঙ্গীত।

তাদের আগে আবোল তাবোল শিশু সংগঠনের শিল্পীরাও শাস্ত্রীয় সংগীত পরিবেশন করে। তারা হলো চিন্ময় বিশ^াস, তন্ময়, অরণী, দুষ্টু, মিত্র ও বীথি।

আয়োজক আবোল তাবোল শিশু সংগঠনের সভাপতি অ্যড. দেবাহুতি চক্রবর্তী জানান, রাজবাড়ীর কালুখালীর সন্তান শ্যামসুন্দর গোস্বামী কিরানা ঘরানা থেকে তালিম নিয়েছেন। ২০১০ সালে ফ্রান্স সরকারের বৃত্তি নিয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে গিয়ে  সঙ্গীতজ্ঞদের সাথে শাস্ত্রীয় সংগীত নিয়ে গবেষণা করেছেন। ২০১৭ সালে বিশ^ ধর্ম সংগীত সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছেন। ভারতে সম্মাননা পেয়েছেন। ২০১৮ সালে জাতীয় সংসদে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও স্পীকার তাকে অভ্যর্ত্থনা জানিয়েছেন। তবলা শিল্পী পন্ডিত শুভ্রাংশু চক্রবর্তী ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা। রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিরোদ বরণ স্মৃতি পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। শাস্ত্রীয় সংগীতের এমন ব্যতিক্রমী আয়োজন করতে পেরে তারা খুবই আনন্দিত।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

শাস্ত্রীয় সংগীতে মুগ্ধ শ্রোতা

প্রকাশের সময় : ০৯:৩৫:৩৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩

তানপুরার ঝংকার, হারমোনিয়ামের মনোরম সুর আর তবলার তালে শাস্ত্রীয় সংগীতে মন্ত্রমুগ্ধ বনে গিয়েছিলেন দর্শক শ্রোতা। বুধবার রাতে রাজবাড়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আবোল তাবোল শিশু সংগঠন আয়োজন করে শাস্ত্রীয় সংগীত সন্ধ্যার। শাস্ত্রীয় সংগীত পরিবেশন করেন প্রখ্যাত উচ্চাঙ্গ সংগীত শিল্পী পন্ডিত শ্যামসুন্দর গোস্বামী। তাকে তবলায় সংগত দেন পন্ডিত শুভ্রাংশু চক্রবর্তী।

দুজনের অংশগ্রহণে শাস্ত্রীয় সঙ্গীত পরিবেশনাকালে শিল্পকলা মিলনায়তনে ছিল পিনপতন নীরবতা। যেন মন্ত্রমুগ্ধের মত উপভোগ করেছে তাদের সঙ্গীত।

তাদের আগে আবোল তাবোল শিশু সংগঠনের শিল্পীরাও শাস্ত্রীয় সংগীত পরিবেশন করে। তারা হলো চিন্ময় বিশ^াস, তন্ময়, অরণী, দুষ্টু, মিত্র ও বীথি।

আয়োজক আবোল তাবোল শিশু সংগঠনের সভাপতি অ্যড. দেবাহুতি চক্রবর্তী জানান, রাজবাড়ীর কালুখালীর সন্তান শ্যামসুন্দর গোস্বামী কিরানা ঘরানা থেকে তালিম নিয়েছেন। ২০১০ সালে ফ্রান্স সরকারের বৃত্তি নিয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে গিয়ে  সঙ্গীতজ্ঞদের সাথে শাস্ত্রীয় সংগীত নিয়ে গবেষণা করেছেন। ২০১৭ সালে বিশ^ ধর্ম সংগীত সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছেন। ভারতে সম্মাননা পেয়েছেন। ২০১৮ সালে জাতীয় সংসদে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও স্পীকার তাকে অভ্যর্ত্থনা জানিয়েছেন। তবলা শিল্পী পন্ডিত শুভ্রাংশু চক্রবর্তী ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা। রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিরোদ বরণ স্মৃতি পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। শাস্ত্রীয় সংগীতের এমন ব্যতিক্রমী আয়োজন করতে পেরে তারা খুবই আনন্দিত।