Dhaka 12:18 pm, Friday, 2 December 2022

আদর্শ মহিলা কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক আহসান হাবীব পেয়েছেন শুদ্ধাচার পুরষ্কার

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : 08:55:36 pm, Monday, 4 July 2022
  • / 1322 জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম পরিকল্পনায় শুদ্ধাচার চর্চার স্বীকৃতি স্বরূপ ২০২১-২০২২ সালে শুদ্ধাচার পুরষ্কার পেয়েছেন রাজবাড়ী সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আহসান হাবীব। তিনি সমকাল সুহৃদ সমাবেশ রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি।

সম্প্রতি কলেজ মিলনায়তনে এ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তাকে পুরষ্কার হিসেবে ক্রেস্ট ও সনদ প্রদান করা হয়। কলেজের অধ্যক্ষ দিলীপ কুমার করসহ কলেজের উপাধ্যক্ষ, সিনিয়র শিক্ষকবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

পুরষ্কার প্রাপ্তির অীনুভূতি প্রকাশ করে আহসান হাবীব হাসু বলেন, আমার চাকরি জীবনের ৯ বছরে আন্তরিকভাবে নিজের কাজ করার চেষ্টা করেছি। শিক্ষার্থী ও শ্রেণিকক্ষই ছিল আমার ধ্যানজ্ঞান।  যখনই ক্লাস নিয়েছি আন্তরিকভাবেই নিয়েছি। শিক্ষার্থীরাও আমার ক্লাসে স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে। নিজের কাজে কখনই কলেজ থেকে ছুটি নেইনি। কলেজ কর্তৃপক্ষ তার উপর যে দায়িত্ব অর্পণ করবে সে দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের চেষ্টা করবেন তিনি।

তিনি মনে করেন ভালো ফলাফলের জন্য শিক্ষার্থীদেও শ্রেণিকক্ষমুখী হওয়া একান্ত প্রয়োজন।

এদিকে শুদ্ধাচার পুরষ্কার পাওয়ায় সমকালের জেলা প্রতিনিধি সৌমিত্র শীল চন্দন, রাজবাড়ী সুহৃদ সমাবেশের সাধারণ সম্পাদক কাজী তামান্নাসহ সকল সুহৃদ তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

আদর্শ মহিলা কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক আহসান হাবীব পেয়েছেন শুদ্ধাচার পুরষ্কার

প্রকাশের সময় : 08:55:36 pm, Monday, 4 July 2022

জনতার আদালত অনলাইন জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম পরিকল্পনায় শুদ্ধাচার চর্চার স্বীকৃতি স্বরূপ ২০২১-২০২২ সালে শুদ্ধাচার পুরষ্কার পেয়েছেন রাজবাড়ী সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আহসান হাবীব। তিনি সমকাল সুহৃদ সমাবেশ রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি।

সম্প্রতি কলেজ মিলনায়তনে এ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তাকে পুরষ্কার হিসেবে ক্রেস্ট ও সনদ প্রদান করা হয়। কলেজের অধ্যক্ষ দিলীপ কুমার করসহ কলেজের উপাধ্যক্ষ, সিনিয়র শিক্ষকবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

পুরষ্কার প্রাপ্তির অীনুভূতি প্রকাশ করে আহসান হাবীব হাসু বলেন, আমার চাকরি জীবনের ৯ বছরে আন্তরিকভাবে নিজের কাজ করার চেষ্টা করেছি। শিক্ষার্থী ও শ্রেণিকক্ষই ছিল আমার ধ্যানজ্ঞান।  যখনই ক্লাস নিয়েছি আন্তরিকভাবেই নিয়েছি। শিক্ষার্থীরাও আমার ক্লাসে স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে। নিজের কাজে কখনই কলেজ থেকে ছুটি নেইনি। কলেজ কর্তৃপক্ষ তার উপর যে দায়িত্ব অর্পণ করবে সে দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের চেষ্টা করবেন তিনি।

তিনি মনে করেন ভালো ফলাফলের জন্য শিক্ষার্থীদেও শ্রেণিকক্ষমুখী হওয়া একান্ত প্রয়োজন।

এদিকে শুদ্ধাচার পুরষ্কার পাওয়ায় সমকালের জেলা প্রতিনিধি সৌমিত্র শীল চন্দন, রাজবাড়ী সুহৃদ সমাবেশের সাধারণ সম্পাদক কাজী তামান্নাসহ সকল সুহৃদ তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।