Dhaka ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গণজাগরণ মঞ্চের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আলোক প্রজ্জ্বলন

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৬:২৭:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১
  • / ১২০৮ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন:  গণজাগরণ মঞ্চের অষ্টম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজবাড়ীতে আলোক প্রজ্জ্বলন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

গণজাগরণ মঞ্চ রাজবাড়ী জেলা শাখার উদ্যোগে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার। অন্যদের মাঝে বক্তৃতা করেন জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সহ সভাপতি আজিজুল হাসান খোকা, ফকীর শাহাদাত হোসেন, সিপিবি নেতা ধীরেন্দ্রনাথ দাস, সাংবাদিক এজাজ আহমেদ, কেন্দ্রীয় ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সহ সভাপতি আবদুল হালিম, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি কাওসার আহমেদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গণজাগরণমঞ্চের যাত্রা শুরু হয়েছিল। সংগঠনের ব্যানারে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি প্রতিবাদ মূখর হয়ে উঠে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও ফাঁসি তরান্বিত হয়। আমাদের অনেক সহযোদ্ধা শহীদ হন, অনেকে আহত হন। কিন্তু সংগঠনের কর্মসূচি থেমে থাকেনি। আগামিতেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে রাজপথে সরব হবে গণজাগরণমঞ্চ।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

গণজাগরণ মঞ্চের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আলোক প্রজ্জ্বলন

প্রকাশের সময় : ০৬:২৭:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১

জনতার আদালত অনলাইন:  গণজাগরণ মঞ্চের অষ্টম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজবাড়ীতে আলোক প্রজ্জ্বলন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

গণজাগরণ মঞ্চ রাজবাড়ী জেলা শাখার উদ্যোগে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার। অন্যদের মাঝে বক্তৃতা করেন জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সহ সভাপতি আজিজুল হাসান খোকা, ফকীর শাহাদাত হোসেন, সিপিবি নেতা ধীরেন্দ্রনাথ দাস, সাংবাদিক এজাজ আহমেদ, কেন্দ্রীয় ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সহ সভাপতি আবদুল হালিম, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি কাওসার আহমেদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গণজাগরণমঞ্চের যাত্রা শুরু হয়েছিল। সংগঠনের ব্যানারে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি প্রতিবাদ মূখর হয়ে উঠে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও ফাঁসি তরান্বিত হয়। আমাদের অনেক সহযোদ্ধা শহীদ হন, অনেকে আহত হন। কিন্তু সংগঠনের কর্মসূচি থেমে থাকেনি। আগামিতেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে রাজপথে সরব হবে গণজাগরণমঞ্চ।