Dhaka ১২:৫১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পাংশায় পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয়ে ইটভাটায় চাঁদাবাজি করতে গিয়ে আটক

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৭:২৮:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১
  • / ১২৯০ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে  গণপিটুনির শিকার  হয়েছে রেজাউল করিম নামে এক ব্যক্তি। পরে পুলিশ তাকে  আটক করে। রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়নের  চরঝিকড়ি এলাকায় সোমবার  বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। আটক রেজাউল মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের ফজল আলী ব্যাপারীর ছেলে।

জানা গেছে, সোমবার বিকেলের দিকে রেজাউল করিম তার এক সঙ্গীসহ মোটরসাইকেল যোগে চরঝিকড়ী গ্রামে অবস্থিত এসকেবি নামক ইটভাটায় গিয়ে বন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের লোক পরিচয় দিয়ে ভাটার মালিক কামাল মন্ডলের কাছে এক লাখ টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে ভাটা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়। কামাল মন্ডলের সন্দেহ হলে তিনি কৌশলে ফরিদপুর পরিবেশ অধিদপ্তরে ফোন দিয়ে জানতে পারেন সেখান থেকে কেউ অভিযানে যায়নি। তারা কেউ পরিবেশ অধিদপ্তরের লোক নয়। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর স্থানীয় লোকজন রেজাউলকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। ওই সময় তার সঙ্গী পালিয়ে যায়। পরে পাংশা থানার পুলিশ গিয়ে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

পাংশা থানার ওসি একেএম শাহাদত হোসেন জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয়ে রেজাউল নামে ওই ব্যক্তি ইটভাটায় চাঁদাবাজি করতে গিয়েছিল। এব্যাপারে ভাটা মালিক কামাল মন্ডল বাদী হয়ে মামলা করেছেন। পুলিশ রেজাউলকে গ্রেপ্তার করে রাজবাড়ীর আদালতে চালান করেছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

পাংশায় পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয়ে ইটভাটায় চাঁদাবাজি করতে গিয়ে আটক

প্রকাশের সময় : ০৭:২৮:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১

জনতার আদালত অনলাইন ॥ পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে  গণপিটুনির শিকার  হয়েছে রেজাউল করিম নামে এক ব্যক্তি। পরে পুলিশ তাকে  আটক করে। রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়নের  চরঝিকড়ি এলাকায় সোমবার  বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। আটক রেজাউল মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের ফজল আলী ব্যাপারীর ছেলে।

জানা গেছে, সোমবার বিকেলের দিকে রেজাউল করিম তার এক সঙ্গীসহ মোটরসাইকেল যোগে চরঝিকড়ী গ্রামে অবস্থিত এসকেবি নামক ইটভাটায় গিয়ে বন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের লোক পরিচয় দিয়ে ভাটার মালিক কামাল মন্ডলের কাছে এক লাখ টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে ভাটা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়। কামাল মন্ডলের সন্দেহ হলে তিনি কৌশলে ফরিদপুর পরিবেশ অধিদপ্তরে ফোন দিয়ে জানতে পারেন সেখান থেকে কেউ অভিযানে যায়নি। তারা কেউ পরিবেশ অধিদপ্তরের লোক নয়। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর স্থানীয় লোকজন রেজাউলকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। ওই সময় তার সঙ্গী পালিয়ে যায়। পরে পাংশা থানার পুলিশ গিয়ে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

পাংশা থানার ওসি একেএম শাহাদত হোসেন জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয়ে রেজাউল নামে ওই ব্যক্তি ইটভাটায় চাঁদাবাজি করতে গিয়েছিল। এব্যাপারে ভাটা মালিক কামাল মন্ডল বাদী হয়ে মামলা করেছেন। পুলিশ রেজাউলকে গ্রেপ্তার করে রাজবাড়ীর আদালতে চালান করেছে।