Dhaka ০৩:২৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বালিয়াকান্দিতে স্ত্রীকে তালাক দিতে জোড়পুর্বক স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার অভিযোগ

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ১১:৩৮:২৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ মে ২০২০
  • / ১৩৯৯ জন সংবাদটি পড়েছেন

 

জনতার আদারত অনলাইন : মারধোর করে দ্বিতীয় স্ত্রীকে জোড়পুর্বক তালাক দিতে মোঃ আব্দুর রব শেখের কাছ থেকে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে তারই স্বজনদের বিরুদ্ধে। রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের কুড়িপাড়া পদমদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তিনি একই গ্রামের মৃত কেছমত আলী শেখের ছেলে।

মোঃ আব্দুর রব শেখ বলেন, ২০১১ সালের ৮ অক্টোবর কুষ্টিয়া জেলার দৌলৎপুর উপজেলার বিলগাথুয়া গ্রামের সুন্নত আলী মন্ডলের মেয়ে আশোরা বেগমের সাথে কাবিননামা মুলে বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী-স্ত্রী হিসেবে বসবাস করে আসছি। প্রথম স্ত্রী মামলা দায়ের করলেও সে আমার বাড়ী ও নিজের নামের জমি ভোগদখল করে আসছে। পরে মামলা তুলে নেওয়াসহ দু,জনকে বাড়ীতে নিয়ে যায়। এ নিয়ে আমার ভাতিজা রফিক, ছেলে মামুন, বড় স্ত্রী সাহেরা খাতুন, কাদের, মাহফুজ জোড়পুর্বক দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দিতে উঠেপড়ে লাগে। জোড়পুর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়াসহ জমি রেজিষ্ট্রি করে নেওয়ার ষড়যন্ত্র ও মারধোর করে। পরে ইসলামপুর ইউনিয়নের বারাদি গ্রামে আইয়ুব হোসেনের বাড়ীতে ভাড়া থেকে বসবাস করছিলাম। গত সোমবার সকাল ১০টার দিকে আমাকে মারধোর করে ওই ভাড়া ঘরে তালা দেওয়াসহ সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে জাল তালাকনামা সৃজনের চেষ্টা করছে। আমি দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দেইনি।

গৃহবধু আশোরা বেগম বলেন, আমাকে তালাক দিতে মারধোর করাসহ সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে রফিক, মামুনসহ স্থানীয় কয়েকজন। ভাড়াটিয়া বাসায়ও তালা মেরে দিয়েছে। এখন আমি স্বামীকে নিয়ে পথে পথে ঘুরছি। আইনের আশ্রয় নিতেও পারছি না। আমাদের বড় ধরনের ক্ষতি সাধন করতে পারে।

ভাড়াটিয়া বাড়ীর মালিক আইয়ুব হোসেন বলেন, আমার বাড়ীতে ৩-৪দিন ভাড়া ছিল। লোকজন এসে ওই রুমে তালা মেরে দিয়েছেন। আর কি হয়েছে বা কোথায় আছে বলতে পারবো না।

মঙ্গলবার বিকালে সরেজমিনে গেলে ঘোনার ঘাটে আঃ রবের ছেলে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় মনজুর উপর চড়াও হয়। বলতে থাকে, বাপকে থামাতে পারছি না। আবার লোকজন আমাদের পিছে লাগে।

অভিযুক্ত রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানিনা।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

বালিয়াকান্দিতে স্ত্রীকে তালাক দিতে জোড়পুর্বক স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার অভিযোগ

প্রকাশের সময় : ১১:৩৮:২৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ মে ২০২০

 

জনতার আদারত অনলাইন : মারধোর করে দ্বিতীয় স্ত্রীকে জোড়পুর্বক তালাক দিতে মোঃ আব্দুর রব শেখের কাছ থেকে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে তারই স্বজনদের বিরুদ্ধে। রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের কুড়িপাড়া পদমদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তিনি একই গ্রামের মৃত কেছমত আলী শেখের ছেলে।

মোঃ আব্দুর রব শেখ বলেন, ২০১১ সালের ৮ অক্টোবর কুষ্টিয়া জেলার দৌলৎপুর উপজেলার বিলগাথুয়া গ্রামের সুন্নত আলী মন্ডলের মেয়ে আশোরা বেগমের সাথে কাবিননামা মুলে বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী-স্ত্রী হিসেবে বসবাস করে আসছি। প্রথম স্ত্রী মামলা দায়ের করলেও সে আমার বাড়ী ও নিজের নামের জমি ভোগদখল করে আসছে। পরে মামলা তুলে নেওয়াসহ দু,জনকে বাড়ীতে নিয়ে যায়। এ নিয়ে আমার ভাতিজা রফিক, ছেলে মামুন, বড় স্ত্রী সাহেরা খাতুন, কাদের, মাহফুজ জোড়পুর্বক দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দিতে উঠেপড়ে লাগে। জোড়পুর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়াসহ জমি রেজিষ্ট্রি করে নেওয়ার ষড়যন্ত্র ও মারধোর করে। পরে ইসলামপুর ইউনিয়নের বারাদি গ্রামে আইয়ুব হোসেনের বাড়ীতে ভাড়া থেকে বসবাস করছিলাম। গত সোমবার সকাল ১০টার দিকে আমাকে মারধোর করে ওই ভাড়া ঘরে তালা দেওয়াসহ সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে জাল তালাকনামা সৃজনের চেষ্টা করছে। আমি দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দেইনি।

গৃহবধু আশোরা বেগম বলেন, আমাকে তালাক দিতে মারধোর করাসহ সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে রফিক, মামুনসহ স্থানীয় কয়েকজন। ভাড়াটিয়া বাসায়ও তালা মেরে দিয়েছে। এখন আমি স্বামীকে নিয়ে পথে পথে ঘুরছি। আইনের আশ্রয় নিতেও পারছি না। আমাদের বড় ধরনের ক্ষতি সাধন করতে পারে।

ভাড়াটিয়া বাড়ীর মালিক আইয়ুব হোসেন বলেন, আমার বাড়ীতে ৩-৪দিন ভাড়া ছিল। লোকজন এসে ওই রুমে তালা মেরে দিয়েছেন। আর কি হয়েছে বা কোথায় আছে বলতে পারবো না।

মঙ্গলবার বিকালে সরেজমিনে গেলে ঘোনার ঘাটে আঃ রবের ছেলে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় মনজুর উপর চড়াও হয়। বলতে থাকে, বাপকে থামাতে পারছি না। আবার লোকজন আমাদের পিছে লাগে।

অভিযুক্ত রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানিনা।