Dhaka ১০:৩৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনা প্রতিরোধে জেলা পুলিশের উদ্যোগ দৃষ্টি কেড়েছে সবার

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৭:৫৭:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০
  • / ১৫৮৫ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে রাজবাড়ী জেলা পুলিশের উদ্যোগ দৃষ্টি কেড়েছে সবার।
রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সূত্র জানায়, শুরুতে বিদেশ ফেরত মানুষের তালিকা করে তাদের ঠিকানা খুঁজে বের করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার ব্যবস্থা করে। সে উদ্যোগে তারা সফলও হয়। জেলার পাঁচ উপজেলায় ১৭৮৭ জন বিদেশ ফেরতকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বাধ্য করা হয়। দ্বিতীয় উদ্যোগ জেলার পাঁচটি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে জেলা পুলিশের উদ্যোগে ৯৫টি ক্যান্ড ওয়াশ কর্ণার স্থাপন করা হয়। বিভিন্ন হাটে বাজারে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ক লিফলেট বিতরণ করা হয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ কার্যক্রমও শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জেলার বিভিন্ন স্থানে এসব হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করেন।
রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএম জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা থাকা অত্যন্ত জরুরী। আর মানুষকে নিরাপদে রাখতে হলে প্রয়োজন হেক্সিসলের। যা বর্তমানে বাজারের কোন দোকানেই পাওয়া যাচ্ছে না। এমনি একটা গুরুত্বপূর্ণ দ্রব্যের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেই তিনি হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরীর উদ্যোগ নেন। খুব বেশি ব্যয় হচ্ছেনা তার। শুধু মানুষিক ভাবে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কথা চিন্তা করলেই এটা তৈরী করা সম্ভব। তারা প্রাথমিক ভাবে ৩০ হাজার বোতল হ্যান্ড স্যানিটাইজার হেক্সিসল তৈরী করছেন। যা তৈরীর পর পরই বিতরণ করা হচ্ছে জনগনকে সচেতনতা বৃদ্ধি ও করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধ করতে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

করোনা প্রতিরোধে জেলা পুলিশের উদ্যোগ দৃষ্টি কেড়েছে সবার

প্রকাশের সময় : ০৭:৫৭:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০

জনতার আদালত অনলাইন ॥ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে রাজবাড়ী জেলা পুলিশের উদ্যোগ দৃষ্টি কেড়েছে সবার।
রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সূত্র জানায়, শুরুতে বিদেশ ফেরত মানুষের তালিকা করে তাদের ঠিকানা খুঁজে বের করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার ব্যবস্থা করে। সে উদ্যোগে তারা সফলও হয়। জেলার পাঁচ উপজেলায় ১৭৮৭ জন বিদেশ ফেরতকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বাধ্য করা হয়। দ্বিতীয় উদ্যোগ জেলার পাঁচটি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে জেলা পুলিশের উদ্যোগে ৯৫টি ক্যান্ড ওয়াশ কর্ণার স্থাপন করা হয়। বিভিন্ন হাটে বাজারে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ক লিফলেট বিতরণ করা হয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ কার্যক্রমও শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জেলার বিভিন্ন স্থানে এসব হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করেন।
রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএম জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা থাকা অত্যন্ত জরুরী। আর মানুষকে নিরাপদে রাখতে হলে প্রয়োজন হেক্সিসলের। যা বর্তমানে বাজারের কোন দোকানেই পাওয়া যাচ্ছে না। এমনি একটা গুরুত্বপূর্ণ দ্রব্যের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেই তিনি হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরীর উদ্যোগ নেন। খুব বেশি ব্যয় হচ্ছেনা তার। শুধু মানুষিক ভাবে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কথা চিন্তা করলেই এটা তৈরী করা সম্ভব। তারা প্রাথমিক ভাবে ৩০ হাজার বোতল হ্যান্ড স্যানিটাইজার হেক্সিসল তৈরী করছেন। যা তৈরীর পর পরই বিতরণ করা হচ্ছে জনগনকে সচেতনতা বৃদ্ধি ও করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধ করতে।