Dhaka ০২:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীর পদ্মায় প্রতি টানে ধরা পড়ছে ইলিশ ॥ খুশী জেলেরা

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৮:০৪:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ নভেম্বর ২০১৯
  • / ১৫৫৬ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ নিষেধাজ্ঞা মৌসুম কাটিয়ে রাজবাড়ীতে নদীতে মাছ ধরতে নেমেছে জেলেরা। জাল ফেলে প্রতি টানেই উঠছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ। তাই জেলেদের মুখে তৃপ্তির হাসি।
ইলিশ প্রজনন মৌসুমে ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত নদীতে মাছ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। দীর্ঘ ২২ দিন অলস সময় কাটিয়ে নদীতে ফিরেছে জেলেরা। বৃহস্পতিবার সকালে রাজবাড়ীর পদ্মা নদীতে গিয়ে দেখা গেছে, নদীতে মাছ ধরতে নেমেছে। যেন উৎসব বিরাজ করছে তাদের মাঝে। জালের প্রতিটি টানে ধরা পড়ছে ইলিশ মাছ। ইলিশে ভরে উঠেছে পদ্মা পাড়ের ঘাটগুলো। নদী থেকে ইলিশ বোঝাই করে হাসিমুখে ঘাটে ফিরছেন জেলেরা।
জেলে মোকসেদ জানান, নিষিদ্ধ সময়ে তিনি একবারও নদীতে নামেননি। ওই কদিন সংসার চালাতে গিয়ে হিমশিম খেয়েছেন। করতে হয়েছে ধারদেনা। নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার ভোরেই জাল আর নৌকা নিয়ে নেমে পড়েছেন নদীতে। অনেক ইলিশ ধরা পড়েছে। মাছ বিক্রি করে তার ধারের টাকা শোধ করতে পারবেন বলে আশা করেন তিনি।
রাজবাড়ী জেলা মৎস্য অফিসের তথ্য মতে, চলতি বছর নিষেধাজ্ঞাকালীন রাজবাড়ীতে মোট ২৩৮টি অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এসব অভিযানে আটক হয়েছে ৩৯৪ জন জেলে। ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়েছে ৭৮ মণ। গত বছর রাজবাড়ীতে ইলিশ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল পাঁচ লাখ ১৭ হাজার মেট্রিক টন। এ বছর তা ছাড়িয়ে যাবে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীর পদ্মায় প্রতি টানে ধরা পড়ছে ইলিশ ॥ খুশী জেলেরা

প্রকাশের সময় : ০৮:০৪:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ নভেম্বর ২০১৯

জনতার আদালত অনলাইন ॥ নিষেধাজ্ঞা মৌসুম কাটিয়ে রাজবাড়ীতে নদীতে মাছ ধরতে নেমেছে জেলেরা। জাল ফেলে প্রতি টানেই উঠছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ। তাই জেলেদের মুখে তৃপ্তির হাসি।
ইলিশ প্রজনন মৌসুমে ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত নদীতে মাছ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। দীর্ঘ ২২ দিন অলস সময় কাটিয়ে নদীতে ফিরেছে জেলেরা। বৃহস্পতিবার সকালে রাজবাড়ীর পদ্মা নদীতে গিয়ে দেখা গেছে, নদীতে মাছ ধরতে নেমেছে। যেন উৎসব বিরাজ করছে তাদের মাঝে। জালের প্রতিটি টানে ধরা পড়ছে ইলিশ মাছ। ইলিশে ভরে উঠেছে পদ্মা পাড়ের ঘাটগুলো। নদী থেকে ইলিশ বোঝাই করে হাসিমুখে ঘাটে ফিরছেন জেলেরা।
জেলে মোকসেদ জানান, নিষিদ্ধ সময়ে তিনি একবারও নদীতে নামেননি। ওই কদিন সংসার চালাতে গিয়ে হিমশিম খেয়েছেন। করতে হয়েছে ধারদেনা। নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার ভোরেই জাল আর নৌকা নিয়ে নেমে পড়েছেন নদীতে। অনেক ইলিশ ধরা পড়েছে। মাছ বিক্রি করে তার ধারের টাকা শোধ করতে পারবেন বলে আশা করেন তিনি।
রাজবাড়ী জেলা মৎস্য অফিসের তথ্য মতে, চলতি বছর নিষেধাজ্ঞাকালীন রাজবাড়ীতে মোট ২৩৮টি অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এসব অভিযানে আটক হয়েছে ৩৯৪ জন জেলে। ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়েছে ৭৮ মণ। গত বছর রাজবাড়ীতে ইলিশ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল পাঁচ লাখ ১৭ হাজার মেট্রিক টন। এ বছর তা ছাড়িয়ে যাবে।