Dhaka ১১:৫১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে পাট ক্ষেতে উদ্ধার লাশের পরিচয় মিলেছে খুন ডাকাতিসহ ৫ মামলার পরোয়ানা নিয়ে ১০ বছর পলাতক ছিল সে

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৮:৫৬:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুলাই ২০১৯
  • / ১৩৪৬ জন সংবাদটি পড়েছেন


জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ী সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের কেষ্টপুর গ্রামের একটি পাটক্ষেতে উদ্ধার হওয়া লাশের পরিচয় পেয়েছে রাজবাড়ী সদর থানার পুলিশ। তার নাম আহাদ আলী মন্ডল। সে চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার রায়পুর কুমারপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে খুন, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধে পাঁচটি মামলা রয়েছে। গ্রেফতারী পরোয়ানা থাকায় দীর্ঘ ১০ বছর ধরে পলাতক জীবন যাপন করছিল সে। হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত আহাদ আলীর স্ত্রী বেবি আক্তার বাদী হয়ে রোববার বিকেলে রাজবাড়ী সদর থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন।
রাজবাড়ী সদর থানার এসআই হিরন কুমার বিশ্বাস জানান, গত শনিবার দুপুরে অজ্ঞাত হিসেবে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহতের চোখের পাশে রক্ত জমাটের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে অন্য কোথাও থেকে হত্যা করে তাকে ওখানে রাখা হয়েছিল। পরে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে তার পরিচয় উদ্ধার করা হয়। এরপর জানা যায়, নিহত আহাদ আলীর বিরুদ্ধে বগুড়ার শিবগঞ্জ থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি ও বিস্ফোরক আইনে একটি, চুয়াডাঙ্গার জীবন নগর থানায় একটি ডাকাতি ও একটি খুনসহ ডাকাতি এবং ঝিনাইদহের কোট চাঁদপুর থানায় ডাকাতির ও কুপিয়ে জখম করাসহ পাঁচটি মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা থাকায় দীর্ঘ ১০ বছর বাড়িতে যেতনা। পলাতক জীবনযাপন করছিল। ফরিদপুর জেলার কৈজুরি গ্রামে বোনের বাসায় থাকতো আহাদ আলী। বৃহস্পতিবার থেকে নিখোঁজ ছিল বলে পরিবারের সদস্যরা তাকে জানিয়েছে। ডাকাতির ভাগবাটোয়ারা নিয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে বলে ধারণা তার। হত্যাকান্ডের সাথে কারা জড়িত এবং কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে তা উদ্ঘাটনের চেষ্টা চলছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীতে পাট ক্ষেতে উদ্ধার লাশের পরিচয় মিলেছে খুন ডাকাতিসহ ৫ মামলার পরোয়ানা নিয়ে ১০ বছর পলাতক ছিল সে

প্রকাশের সময় : ০৮:৫৬:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুলাই ২০১৯


জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ী সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের কেষ্টপুর গ্রামের একটি পাটক্ষেতে উদ্ধার হওয়া লাশের পরিচয় পেয়েছে রাজবাড়ী সদর থানার পুলিশ। তার নাম আহাদ আলী মন্ডল। সে চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার রায়পুর কুমারপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে খুন, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধে পাঁচটি মামলা রয়েছে। গ্রেফতারী পরোয়ানা থাকায় দীর্ঘ ১০ বছর ধরে পলাতক জীবন যাপন করছিল সে। হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত আহাদ আলীর স্ত্রী বেবি আক্তার বাদী হয়ে রোববার বিকেলে রাজবাড়ী সদর থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন।
রাজবাড়ী সদর থানার এসআই হিরন কুমার বিশ্বাস জানান, গত শনিবার দুপুরে অজ্ঞাত হিসেবে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহতের চোখের পাশে রক্ত জমাটের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে অন্য কোথাও থেকে হত্যা করে তাকে ওখানে রাখা হয়েছিল। পরে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে তার পরিচয় উদ্ধার করা হয়। এরপর জানা যায়, নিহত আহাদ আলীর বিরুদ্ধে বগুড়ার শিবগঞ্জ থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি ও বিস্ফোরক আইনে একটি, চুয়াডাঙ্গার জীবন নগর থানায় একটি ডাকাতি ও একটি খুনসহ ডাকাতি এবং ঝিনাইদহের কোট চাঁদপুর থানায় ডাকাতির ও কুপিয়ে জখম করাসহ পাঁচটি মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা থাকায় দীর্ঘ ১০ বছর বাড়িতে যেতনা। পলাতক জীবনযাপন করছিল। ফরিদপুর জেলার কৈজুরি গ্রামে বোনের বাসায় থাকতো আহাদ আলী। বৃহস্পতিবার থেকে নিখোঁজ ছিল বলে পরিবারের সদস্যরা তাকে জানিয়েছে। ডাকাতির ভাগবাটোয়ারা নিয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে বলে ধারণা তার। হত্যাকান্ডের সাথে কারা জড়িত এবং কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে তা উদ্ঘাটনের চেষ্টা চলছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।