Dhaka ০১:২৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে মানববন্ধনে বাসচালকের ফাঁসির দাবী

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৯:২৫:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৮
  • / ১৭৯৯ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন॥ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে যাত্রীবাহী এক বাসের চাপায় স্থানীয় দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের নবম শ্রেণির মেধাবী দুই ছাত্রী জাকিয়া সুলতানা ওরফে কেয়া ও চাঁদনী আক্তার নিহত হন। ঘটনার প্রতিবাদ ও সংশ্লিষ্ট বাসচালকের ফাঁসির দাবীতে গতকাল রবিবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে ওই স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের ক্যানেল ঘাট এলাকায় বেলা সাড়ে ১০টা থেকে এক ঘন্টার ওই মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের পরিচালনা কমিটির সভাপতি দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম মন্ডল, প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল ইসলাম, গোয়ালন্দ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান রুবেল প্রমূখ।
উল্লেখ্য, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের অমর আলী সরদার পাড়া গ্রামের জালাল শেখের মেয়ে জাকিয়া সুলতানা ওরফে কেয়া, পাশের যদু ফকিরপাড়া গ্রামের সালাম শেখের মেয়ে চাঁদনী আক্তার। তাঁরা দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের নবম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী ছিলেন। গত শনিবার দুপুরে মূল্যায়ন পরীক্ষা দিতে তাঁরা নিজ নিজ বাড়ি থেকে বের হন। পরে স্কুলের সামনে মহাসড়কে পৌছাতেই ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা যশোরগামী ঈগল পরিবহনের যাত্রীবাহী এক বাসের (ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৬৫১৬) চাপায় সহপাঠি দুই ছাত্রী জাকিয়া ও চাঁদনী নিহত হন। এতে স্থানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা মহাসড়ক অবরোধ করে গাড়ি ভাঙচুর চালায়। পাশাপাশি আগুন লাগিয়ে গোল্ডেন লাইন নামের যাত্রীবাহী একটি বাস পুড়িয়ে দেয়। পরে খবর পেয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানাপুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে টানা সাড়ে ৩ ঘন্টা চেষ্টার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এজাজ শফী জানান, ‘ঈগল পরিবহন কোম্পানীর ঘাতক বাসটিকে জব্দ করা হয়েছে। পাশাপাশি বাসটির চালক রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

গোয়ালন্দে মানববন্ধনে বাসচালকের ফাঁসির দাবী

প্রকাশের সময় : ০৯:২৫:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৮

জনতার আদালত অনলাইন॥ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে যাত্রীবাহী এক বাসের চাপায় স্থানীয় দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের নবম শ্রেণির মেধাবী দুই ছাত্রী জাকিয়া সুলতানা ওরফে কেয়া ও চাঁদনী আক্তার নিহত হন। ঘটনার প্রতিবাদ ও সংশ্লিষ্ট বাসচালকের ফাঁসির দাবীতে গতকাল রবিবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে ওই স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের ক্যানেল ঘাট এলাকায় বেলা সাড়ে ১০টা থেকে এক ঘন্টার ওই মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের পরিচালনা কমিটির সভাপতি দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম মন্ডল, প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল ইসলাম, গোয়ালন্দ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান রুবেল প্রমূখ।
উল্লেখ্য, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের অমর আলী সরদার পাড়া গ্রামের জালাল শেখের মেয়ে জাকিয়া সুলতানা ওরফে কেয়া, পাশের যদু ফকিরপাড়া গ্রামের সালাম শেখের মেয়ে চাঁদনী আক্তার। তাঁরা দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের নবম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী ছিলেন। গত শনিবার দুপুরে মূল্যায়ন পরীক্ষা দিতে তাঁরা নিজ নিজ বাড়ি থেকে বের হন। পরে স্কুলের সামনে মহাসড়কে পৌছাতেই ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা যশোরগামী ঈগল পরিবহনের যাত্রীবাহী এক বাসের (ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৬৫১৬) চাপায় সহপাঠি দুই ছাত্রী জাকিয়া ও চাঁদনী নিহত হন। এতে স্থানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা মহাসড়ক অবরোধ করে গাড়ি ভাঙচুর চালায়। পাশাপাশি আগুন লাগিয়ে গোল্ডেন লাইন নামের যাত্রীবাহী একটি বাস পুড়িয়ে দেয়। পরে খবর পেয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানাপুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে টানা সাড়ে ৩ ঘন্টা চেষ্টার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এজাজ শফী জানান, ‘ঈগল পরিবহন কোম্পানীর ঘাতক বাসটিকে জব্দ করা হয়েছে। পাশাপাশি বাসটির চালক রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’