Dhaka ০৯:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাংশা ইউএনও’র নাম্বার ক্লোন করে ইউপি চেয়ারম্যানদের কাছে টাকা দাবি

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৮:২১:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুলাই ২০১৭
  • / ১৭২৯ জন সংবাদটি পড়েছেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারি নাম্বার (০১৭৩৩৩৩৬৪০৫) ক্লোন করে পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে টাকা দাবি করেছে অজ্ঞাতনামা একটি প্রতারক চক্র। সোমবার বেলা ১১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
কসবামাজাইল ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খান জানান, ইউএনও’র নম্বর থেকে ফোন আসে পৌনে ১১টার দিকে। এসময় ১০ টন টিআর ও ১০টন কাবিখা আমি বেশি নিতে চাই কিনা জানতে চায়। আমি ইউপি সচিববের সঙ্গে কথা বলার পর জানাতে চাই। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে টন প্রতি দুই হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। কিন্তু ইউএনও’র গলার স্বর চিনতে পারায় আমি টাকা দেইনি। পরে সভায় এসে বিষয়টি অবহিত করি।
পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাখাওয়াৎ হোসেন জানান, উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে সকাল ১১টায় আসন্ন বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় উপজেলা দুর্যোগ প্রতিরোধ কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কমিটির সভাপতি ফরিদ হাসান ওদুদ। তিনিসহ সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ রাশেদ উজ্জামান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা মাহমুদ হেনা মুন্সী, নারী ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস শাহিদা আহম্মেদসহ বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যান ও কর্মকর্তারা অংশ নেন। সভা চলাকালীন সময়েও কয়েকজন চেয়ারম্যানের কাছে আমার নম্বর ক্লোন করে ফোন দেওয়া হয়। আমি তাদের কল ধরতে বলি। এসময় অপরপ্রান্ত থেকে টন প্রতি দুই হাজার টাকা করে চাঁদা দাবি করা হয়।
বিষয়টি সৌভাগ্যের যে, আমার সামনেই চেয়ারম্যানদের কাছে ফোন আসায় বিষয়টি পরিষ্কার হয়েছে। তা না হলে ঘটনাটি খুবই বিব্রতকর হতো। এব্যাপারে পাংশা থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। এবং গ্রামীণ ফোন কোম্পানীকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।
পাংশা থানার ওসি মোফাজ্জেল হোসেন জানান, তিনি সারাদিন রাজবাড়ী পুলিশ সুপার কার্যালয়ে ছিলেন। বিষয়টি তিনি শুনেছেন। পাংশা ফিরে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেবেন।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

পাংশা ইউএনও’র নাম্বার ক্লোন করে ইউপি চেয়ারম্যানদের কাছে টাকা দাবি

প্রকাশের সময় : ০৮:২১:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুলাই ২০১৭

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারি নাম্বার (০১৭৩৩৩৩৬৪০৫) ক্লোন করে পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে টাকা দাবি করেছে অজ্ঞাতনামা একটি প্রতারক চক্র। সোমবার বেলা ১১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
কসবামাজাইল ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খান জানান, ইউএনও’র নম্বর থেকে ফোন আসে পৌনে ১১টার দিকে। এসময় ১০ টন টিআর ও ১০টন কাবিখা আমি বেশি নিতে চাই কিনা জানতে চায়। আমি ইউপি সচিববের সঙ্গে কথা বলার পর জানাতে চাই। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে টন প্রতি দুই হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। কিন্তু ইউএনও’র গলার স্বর চিনতে পারায় আমি টাকা দেইনি। পরে সভায় এসে বিষয়টি অবহিত করি।
পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাখাওয়াৎ হোসেন জানান, উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে সকাল ১১টায় আসন্ন বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় উপজেলা দুর্যোগ প্রতিরোধ কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কমিটির সভাপতি ফরিদ হাসান ওদুদ। তিনিসহ সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ রাশেদ উজ্জামান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তফা মাহমুদ হেনা মুন্সী, নারী ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস শাহিদা আহম্মেদসহ বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যান ও কর্মকর্তারা অংশ নেন। সভা চলাকালীন সময়েও কয়েকজন চেয়ারম্যানের কাছে আমার নম্বর ক্লোন করে ফোন দেওয়া হয়। আমি তাদের কল ধরতে বলি। এসময় অপরপ্রান্ত থেকে টন প্রতি দুই হাজার টাকা করে চাঁদা দাবি করা হয়।
বিষয়টি সৌভাগ্যের যে, আমার সামনেই চেয়ারম্যানদের কাছে ফোন আসায় বিষয়টি পরিষ্কার হয়েছে। তা না হলে ঘটনাটি খুবই বিব্রতকর হতো। এব্যাপারে পাংশা থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। এবং গ্রামীণ ফোন কোম্পানীকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।
পাংশা থানার ওসি মোফাজ্জেল হোসেন জানান, তিনি সারাদিন রাজবাড়ী পুলিশ সুপার কার্যালয়ে ছিলেন। বিষয়টি তিনি শুনেছেন। পাংশা ফিরে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেবেন।