Dhaka ০১:২২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মধুখালীতে অগ্নিকান্ড ॥ গৃহবধু দগ্ধ ॥ ২টি গরুর মৃত্যু

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৮:২০:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৭
  • / ১৩২০ জন সংবাদটি পড়েছেন

মধুখালী প্রতিনিধি ॥ রোববার ভোরে মধুখালী উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের লক্ষনদিয়া আলিরপাড় গ্রামের কেসমত খানের ছেলে নাসির খানের গরুর গোয়ালে অগ্নিকান্ডে একটি গাভী ও বাছুরসহ গোয়াল ঘর আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। নাসিরের স্ত্রী রুপিয়া বেগম (৩৫) অগ্নিদগ্ধ হয়ে আশংকাজনক অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। মসার কয়েল থেকে আগুনের সুত্রপাত হতেপারে বলে বাড়ির মালিক জানিয়েছেন।
নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান মোল্যা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রোববার ভোরে লক্ষনদিয়া আলির পাড় গ্রামের নাসির খানের বাড়িতে অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। অগ্নিদগ্ধ নাসিরের স্ত্রী রুপিয়া বেগম (৩৫)কে প্রথমে মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। পরে তাকে ফরিদপুরে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।
মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডা. কবির সরদার জানান, অগ্নিদগ্ধ রুপিয়া বেগমকে রোববার ভোরে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থতা আশংকাজনক হওয়ায় সকালেই দ্রুত ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে প্রেরণ করা হয়েছে।
অপর দিকে উপজেলার কামারখালী ইউনিয়নের মছলন্দপুর পশ্চিমপাড়া লতিফ শেখের বাড়ি আগুনে পুড়ে দুইটা বড় ঘর ও একটা রান্না ঘর এবং ইবাদত শেখের একটি থাকার ঘর আগুনে পুড়ে ভূষীভুত হয়েছে।
পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে  রোববার  দুপুরে লতিফের স্ত্রী জানু বেগম চুলায় রান্না করছিলেন। এ সময় জানুর  নাতিন সাদিয়া-(৭) পাটকাঠি দিয়ে চুলা থেকে আগুন লাগিয়ে বড় ঘরের সামনে থাকা পাটকাঠিতে ধরাইয়া দেয়। পাটকাঠিতে  আগুন ধরে দুইটা বড় ঘর, একটি রান্না ঘর এবং সেই সাথে ইবাদত শেখের থাকার ঘরও পুড়ে যায়। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নগদ ৪০ হাজার টাকা সহ প্রায় ৩ লক্ষ টাকা  বলে পবিবারের দাবী । ঘরের ভিতর থেকে কোন জিনিসপত্র রক্ষা করা সম্ভব  হয় নাই ।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

মধুখালীতে অগ্নিকান্ড ॥ গৃহবধু দগ্ধ ॥ ২টি গরুর মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ০৮:২০:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

মধুখালী প্রতিনিধি ॥ রোববার ভোরে মধুখালী উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের লক্ষনদিয়া আলিরপাড় গ্রামের কেসমত খানের ছেলে নাসির খানের গরুর গোয়ালে অগ্নিকান্ডে একটি গাভী ও বাছুরসহ গোয়াল ঘর আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। নাসিরের স্ত্রী রুপিয়া বেগম (৩৫) অগ্নিদগ্ধ হয়ে আশংকাজনক অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। মসার কয়েল থেকে আগুনের সুত্রপাত হতেপারে বলে বাড়ির মালিক জানিয়েছেন।
নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান মোল্যা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রোববার ভোরে লক্ষনদিয়া আলির পাড় গ্রামের নাসির খানের বাড়িতে অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। অগ্নিদগ্ধ নাসিরের স্ত্রী রুপিয়া বেগম (৩৫)কে প্রথমে মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। পরে তাকে ফরিদপুরে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।
মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডা. কবির সরদার জানান, অগ্নিদগ্ধ রুপিয়া বেগমকে রোববার ভোরে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থতা আশংকাজনক হওয়ায় সকালেই দ্রুত ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে প্রেরণ করা হয়েছে।
অপর দিকে উপজেলার কামারখালী ইউনিয়নের মছলন্দপুর পশ্চিমপাড়া লতিফ শেখের বাড়ি আগুনে পুড়ে দুইটা বড় ঘর ও একটা রান্না ঘর এবং ইবাদত শেখের একটি থাকার ঘর আগুনে পুড়ে ভূষীভুত হয়েছে।
পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে  রোববার  দুপুরে লতিফের স্ত্রী জানু বেগম চুলায় রান্না করছিলেন। এ সময় জানুর  নাতিন সাদিয়া-(৭) পাটকাঠি দিয়ে চুলা থেকে আগুন লাগিয়ে বড় ঘরের সামনে থাকা পাটকাঠিতে ধরাইয়া দেয়। পাটকাঠিতে  আগুন ধরে দুইটা বড় ঘর, একটি রান্না ঘর এবং সেই সাথে ইবাদত শেখের থাকার ঘরও পুড়ে যায়। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নগদ ৪০ হাজার টাকা সহ প্রায় ৩ লক্ষ টাকা  বলে পবিবারের দাবী । ঘরের ভিতর থেকে কোন জিনিসপত্র রক্ষা করা সম্ভব  হয় নাই ।