Dhaka ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে স্বামীকে হত্যার দায়ে স্ত্রীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৭:১১:২৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৪১ জন সংবাদটি পড়েছেন

রাজবাড়ীতে আশরাফ সানা নামে এক ব্যক্তিকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যার দায়ে স্ত্রী সাহিদা বেগম (৫৭)কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। বুধবার রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জাকিয়া পারভীন এ রায় দেন। দন্ডপ্রাপ্ত সাহিদা বেগমের বাড়ি রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার বংকুর গ্রামে। মৃত আশরাফ সানা সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার ওকাপুর গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, আশরাফ সানা বালিয়াকান্দির সাহিদা বেগমকে বিয়ের পর সেখানেই বসবাস করতেন। তাদের সংসারে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে। পরবর্তীতে তিনি সাতক্ষীরাতে আরও একটি বিয়ে করেন। এরপর সাহিদা বেগমের সংসারে ভরণপোষণ বন্ধ করে দেন। উপরন্তু সাহিদা বেগমকে মারধর করতেন ও টাকা পয়সা চাইতেন। এরই জের ধরে ২০১২ সালের ৪ ডিসেম্বর তারিখে আশরাফ সাহিদার কাছে টাকা চাইলে দুজনের মধ্যে তুমুল ঝগড়া-বিবাদ হয়। কলহের এক পর্যায়ে আশরাফ লোহার রড দিয়ে সাহিদাকে মারতে উদ্যত হয়। সাহিদা আশরাফের কাছ থেকে লোহার রড কেড়ে নিয়ে তাকে পেটাতে থাকে। ঘটনাস্থলেই মারা যান আশরাফ। এ ঘটনায় তাদের মেয়ে আফরোজা বেগম বাদী হয়ে ওই দিনই বালিয়াকান্দি থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে পুলিশ সাহিদা বেগমকে গ্রেপ্তার করে ও আদালতে চার্জশীট দেয়।

আদালত মামলার কাগজপত্র পর্যালোচনা ও দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামি সাহিদা বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যড. উজীর আলী বলেন, আদালত রায় প্রদানের সময় বলেছেন সাহিদা বেগম যে অপরাধ করেছেন এজন্য তার মৃত্যুদন্ড হয়। কিন্তু আসামির বয়স বিবেচনায় তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এই রায়ে আমি খুশি।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীতে স্বামীকে হত্যার দায়ে স্ত্রীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড

প্রকাশের সময় : ০৭:১১:২৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাজবাড়ীতে আশরাফ সানা নামে এক ব্যক্তিকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যার দায়ে স্ত্রী সাহিদা বেগম (৫৭)কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। বুধবার রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জাকিয়া পারভীন এ রায় দেন। দন্ডপ্রাপ্ত সাহিদা বেগমের বাড়ি রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার বংকুর গ্রামে। মৃত আশরাফ সানা সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার ওকাপুর গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, আশরাফ সানা বালিয়াকান্দির সাহিদা বেগমকে বিয়ের পর সেখানেই বসবাস করতেন। তাদের সংসারে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে। পরবর্তীতে তিনি সাতক্ষীরাতে আরও একটি বিয়ে করেন। এরপর সাহিদা বেগমের সংসারে ভরণপোষণ বন্ধ করে দেন। উপরন্তু সাহিদা বেগমকে মারধর করতেন ও টাকা পয়সা চাইতেন। এরই জের ধরে ২০১২ সালের ৪ ডিসেম্বর তারিখে আশরাফ সাহিদার কাছে টাকা চাইলে দুজনের মধ্যে তুমুল ঝগড়া-বিবাদ হয়। কলহের এক পর্যায়ে আশরাফ লোহার রড দিয়ে সাহিদাকে মারতে উদ্যত হয়। সাহিদা আশরাফের কাছ থেকে লোহার রড কেড়ে নিয়ে তাকে পেটাতে থাকে। ঘটনাস্থলেই মারা যান আশরাফ। এ ঘটনায় তাদের মেয়ে আফরোজা বেগম বাদী হয়ে ওই দিনই বালিয়াকান্দি থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে পুলিশ সাহিদা বেগমকে গ্রেপ্তার করে ও আদালতে চার্জশীট দেয়।

আদালত মামলার কাগজপত্র পর্যালোচনা ও দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামি সাহিদা বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যড. উজীর আলী বলেন, আদালত রায় প্রদানের সময় বলেছেন সাহিদা বেগম যে অপরাধ করেছেন এজন্য তার মৃত্যুদন্ড হয়। কিন্তু আসামির বয়স বিবেচনায় তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এই রায়ে আমি খুশি।