Dhaka ১১:১০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বৃদ্ধকে পিটিয়ে গুরুতর জখম \ নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটের অভিযোগ

কালুখালীতে সংখ্যালঘুর বাড়িতে হামলা

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৯:৩৪:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১০৪২ জন সংবাদটি পড়েছেন

 রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়য়নের লাড়িবাড়ি গ্রামে একদল সশস্ত্র দুর্বৃত্ত সংখ্যালঘু মঙ্গল বিশ^াসের(৬৫) বাড়িতে হামলা করে তাকে বেধরক পিটিয়ে জখম করেছে। বাড়িতে থাকা নারী শিশুদের মারধর ও অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ছিনিয়ে নিয়েছে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার। রোববার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ভুক্তভোগী পরিবারটি। হামলায় আহত মঙ্গল চন্দ্র বিশ^াসকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকায় নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। এ ঘটনায় কালুখালী থানায় মামলা হলেও এখনও কেউ গ্রেপ্তার বা আটক হয়নি।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে মঙ্গল চন্দ্র বিশ^াসের পুত্রবধূ মুক্তি রানী বিশ^াস জানান, রোববার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ১০/১২ জনের একদল দুর্র্বৃত্ত তাদের বাড়িতে আসে। তখন সবাই ঘুমিয়ে। দুর্বৃত্তরা ডিবির লোক পরিচয় দিয়ে দরজা খুলতে বলে। কিন্তু তার শ^শুর মঙ্গল চন্দ্র বিশ^াস ঘর খোলেননি। ঘর না খোলায় অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে দুর্বৃত্তরা। তারা তখন বুঝতে পারেন এরা ডিবির লোক নয়। দুর্বৃত্তরা তার শ^শুরের ঘর ভেঙে ভেতরে ঢুকে তাকে টেনে হিচড়ে বাড়ির আঙিনায় নিয়ে আসে। তার শ^শুরের কাছে জিজ্ঞেস করে তোর ছেলে কুমারেশের ঘর কোনটা। তার শ^শুর কুমারেশের ঘর দেখিয়ে দেন। এরপর শ^শুরকে দিয়ে কুমারশকে ডেকে তোলায়। কুমারেশ বের হওয়ার পর তার ঘাড়ে রামদা ঠেকায়। কুমারেশ দুর্বৃত্তদের হাত থেকে বাঁচতে ছুটে দৌড় দেয়। পরে দুর্বৃত্তরা কুমারেশের ঘরে থাকা ২ লাখ ৯৩ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। দুর্বৃত্তরা বাড়িতে থাকা শিশুদের বন্দুক ঠেকিয়ে তার শ^শুরকে পা থেকে মাথা পর্যন্ত একটানা বেধরক পিটিয়েছে। দুর্বৃত্তরা তার ছেলের দিকে রামদা তাক করে তাকে ও তার স্বামীকে ঘরে বন্দী করে রাখে। তার দুই জা শ^শুরকে ঠেকাতে গেলে তাদেরও মারধর করে। জায়ের কানের দুল জোর করে ছিনিয়ে নিয়ে একটি গুলি ফুটিয়ে চলে যায়।

তিনি আরও জানান, এর আগে ২০১৬ সালে তাদের বাড়িতে হামলা হয়েছিল। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হামলা হয়েছে বলে ধারণা তার। এই গ্রামে মাত্র দুটি হিন্দু ঘর আছে। এখন স্বাভাবিক জীবনযাপন করা খুব কঠিন হয়েছে। তারা খুবই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। প্রশাসনের কাছে তাদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

পাংশা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সুমন কুমার সাহা জানান, খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। জায়গা জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এব্যাপারে মামলা হয়েছে। পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। ভুক্তভোগী পরিবারের নিরাপত্তায় গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

বৃদ্ধকে পিটিয়ে গুরুতর জখম \ নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটের অভিযোগ

কালুখালীতে সংখ্যালঘুর বাড়িতে হামলা

প্রকাশের সময় : ০৯:৩৪:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়য়নের লাড়িবাড়ি গ্রামে একদল সশস্ত্র দুর্বৃত্ত সংখ্যালঘু মঙ্গল বিশ^াসের(৬৫) বাড়িতে হামলা করে তাকে বেধরক পিটিয়ে জখম করেছে। বাড়িতে থাকা নারী শিশুদের মারধর ও অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ছিনিয়ে নিয়েছে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার। রোববার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ভুক্তভোগী পরিবারটি। হামলায় আহত মঙ্গল চন্দ্র বিশ^াসকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকায় নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। এ ঘটনায় কালুখালী থানায় মামলা হলেও এখনও কেউ গ্রেপ্তার বা আটক হয়নি।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে মঙ্গল চন্দ্র বিশ^াসের পুত্রবধূ মুক্তি রানী বিশ^াস জানান, রোববার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ১০/১২ জনের একদল দুর্র্বৃত্ত তাদের বাড়িতে আসে। তখন সবাই ঘুমিয়ে। দুর্বৃত্তরা ডিবির লোক পরিচয় দিয়ে দরজা খুলতে বলে। কিন্তু তার শ^শুর মঙ্গল চন্দ্র বিশ^াস ঘর খোলেননি। ঘর না খোলায় অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে দুর্বৃত্তরা। তারা তখন বুঝতে পারেন এরা ডিবির লোক নয়। দুর্বৃত্তরা তার শ^শুরের ঘর ভেঙে ভেতরে ঢুকে তাকে টেনে হিচড়ে বাড়ির আঙিনায় নিয়ে আসে। তার শ^শুরের কাছে জিজ্ঞেস করে তোর ছেলে কুমারেশের ঘর কোনটা। তার শ^শুর কুমারেশের ঘর দেখিয়ে দেন। এরপর শ^শুরকে দিয়ে কুমারশকে ডেকে তোলায়। কুমারেশ বের হওয়ার পর তার ঘাড়ে রামদা ঠেকায়। কুমারেশ দুর্বৃত্তদের হাত থেকে বাঁচতে ছুটে দৌড় দেয়। পরে দুর্বৃত্তরা কুমারেশের ঘরে থাকা ২ লাখ ৯৩ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। দুর্বৃত্তরা বাড়িতে থাকা শিশুদের বন্দুক ঠেকিয়ে তার শ^শুরকে পা থেকে মাথা পর্যন্ত একটানা বেধরক পিটিয়েছে। দুর্বৃত্তরা তার ছেলের দিকে রামদা তাক করে তাকে ও তার স্বামীকে ঘরে বন্দী করে রাখে। তার দুই জা শ^শুরকে ঠেকাতে গেলে তাদেরও মারধর করে। জায়ের কানের দুল জোর করে ছিনিয়ে নিয়ে একটি গুলি ফুটিয়ে চলে যায়।

তিনি আরও জানান, এর আগে ২০১৬ সালে তাদের বাড়িতে হামলা হয়েছিল। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হামলা হয়েছে বলে ধারণা তার। এই গ্রামে মাত্র দুটি হিন্দু ঘর আছে। এখন স্বাভাবিক জীবনযাপন করা খুব কঠিন হয়েছে। তারা খুবই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। প্রশাসনের কাছে তাদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

পাংশা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সুমন কুমার সাহা জানান, খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। জায়গা জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এব্যাপারে মামলা হয়েছে। পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। ভুক্তভোগী পরিবারের নিরাপত্তায় গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।