Dhaka ০১:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ী পৌরসভা নির্বাচন: মক ভোটিংয়ে সাড়া কম

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৭:২৫:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২১
  • / ১২২১ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ ১৪ ফেব্রুয়ারি রোববার রাজবাড়ী পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ইভিএম এর মাধ্যমে। ভোটারদের হাতে কলমে ভোটদান শেখানোর লক্ষ্যে শুক্রবার আয়োজন করা  হয় মক ভোটিংয়ের। কিন্তু সেখানে ভোটারদের খুব একটা সাড়া মেলেনি। উপস্থিতি ছিল খুবই কম।

রাজবাড়ী পৌরসভা মোট ভোট কেন্দ্র ১৮টি। প্রতিটি কেন্দ্রে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত মক ভোটিংয়ের আয়োজন করা হয়। সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসারগণ সেখানে উপস্থিত ছিলেন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র রাজবাড়ী শহরের  শেরেবাংলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ১২ জন ভোটার মক ভোটিংয়ে অংশ নিয়েছেন। এই কেন্দ্রের মোট ভোটার ২৫৪২ জন। দুপুর ২টা ৪০ পর্যন্ত পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের বিনোদপুর পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অংশ নেন ১৩২ জন। এ কেন্দ্রে মোট ২২৫৫ জন। দুপুর তিনটার দিকে ৮ নং ওয়ার্ডের বাজার পাঠশালা কেন্দ্রে গিয়ে জানা যায়,  ৫৫ জন অংশ নিয়েছেন। এ কেন্দ্রে মোট ভোটার  ৩১২৭ জন। প্রায় একই সময়ে ১ নং ওয়ার্ডের কাজী হেদায়েত হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, পুরুষ কেন্দ্রের ২০৭২ ভোটারের মধ্যে ৩৭ জন এবং নারী কেন্দ্রের ২০৭৫ জনের মধ্যে ৫৯ জন মক ভোটিংয়ে অংশ নিয়েছেন।

মক ভোটিংয়ে ভোটারদের উপস্থিতি কম হওয়ায় ভোট দিতে গিয়ে ভোটাররা সমস্যার মুখোমুখি হবে কীনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। কারণ, এই প্রথমবারের মত রাজবাড়ীতে ইভিএম পদ্ধতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

রাজবাড়ী বাজার পাঠশালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং অফিসার সামসুল আলম জানান, ভোটাররা তাদের স্মার্ট কার্ড নিয়ে ভোট কেন্দ্রে আসলে দ্রুত সময়ের মধ্যে সহজেই ভোট দিয়ে যেতে পারবেন।

রাজবাড়ী পৌরসভার রিটার্নিং অফিসার ও রাজবাড়ীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সারোয়ার আহমেদ সালেহীন বলেন, মক ভোটিং নিয়ে আমরা প্রচার প্রচারণা চালিয়েছি। সেখানে ভোটারদের উপস্থিতি কম হলে কিছু করার নেই। তবে ভোট দিতে গিয়ে ভোটাররা সমস্যায় পড়লে ভোটগ্রহণকারী কর্মকর্তারা সহযোগিতা করবেন। আশা করি সমস্যা হবেনা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভোটাররা যতক্ষণ লাইনে থাকবেন ততক্ষণ পর্যন্ত ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এটি নির্বাচনী আইনেই আছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ী পৌরসভা নির্বাচন: মক ভোটিংয়ে সাড়া কম

প্রকাশের সময় : ০৭:২৫:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২১

জনতার আদালত অনলাইন ॥ ১৪ ফেব্রুয়ারি রোববার রাজবাড়ী পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ইভিএম এর মাধ্যমে। ভোটারদের হাতে কলমে ভোটদান শেখানোর লক্ষ্যে শুক্রবার আয়োজন করা  হয় মক ভোটিংয়ের। কিন্তু সেখানে ভোটারদের খুব একটা সাড়া মেলেনি। উপস্থিতি ছিল খুবই কম।

রাজবাড়ী পৌরসভা মোট ভোট কেন্দ্র ১৮টি। প্রতিটি কেন্দ্রে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত মক ভোটিংয়ের আয়োজন করা হয়। সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসারগণ সেখানে উপস্থিত ছিলেন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের কেন্দ্র রাজবাড়ী শহরের  শেরেবাংলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ১২ জন ভোটার মক ভোটিংয়ে অংশ নিয়েছেন। এই কেন্দ্রের মোট ভোটার ২৫৪২ জন। দুপুর ২টা ৪০ পর্যন্ত পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের বিনোদপুর পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অংশ নেন ১৩২ জন। এ কেন্দ্রে মোট ২২৫৫ জন। দুপুর তিনটার দিকে ৮ নং ওয়ার্ডের বাজার পাঠশালা কেন্দ্রে গিয়ে জানা যায়,  ৫৫ জন অংশ নিয়েছেন। এ কেন্দ্রে মোট ভোটার  ৩১২৭ জন। প্রায় একই সময়ে ১ নং ওয়ার্ডের কাজী হেদায়েত হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, পুরুষ কেন্দ্রের ২০৭২ ভোটারের মধ্যে ৩৭ জন এবং নারী কেন্দ্রের ২০৭৫ জনের মধ্যে ৫৯ জন মক ভোটিংয়ে অংশ নিয়েছেন।

মক ভোটিংয়ে ভোটারদের উপস্থিতি কম হওয়ায় ভোট দিতে গিয়ে ভোটাররা সমস্যার মুখোমুখি হবে কীনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। কারণ, এই প্রথমবারের মত রাজবাড়ীতে ইভিএম পদ্ধতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

রাজবাড়ী বাজার পাঠশালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং অফিসার সামসুল আলম জানান, ভোটাররা তাদের স্মার্ট কার্ড নিয়ে ভোট কেন্দ্রে আসলে দ্রুত সময়ের মধ্যে সহজেই ভোট দিয়ে যেতে পারবেন।

রাজবাড়ী পৌরসভার রিটার্নিং অফিসার ও রাজবাড়ীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সারোয়ার আহমেদ সালেহীন বলেন, মক ভোটিং নিয়ে আমরা প্রচার প্রচারণা চালিয়েছি। সেখানে ভোটারদের উপস্থিতি কম হলে কিছু করার নেই। তবে ভোট দিতে গিয়ে ভোটাররা সমস্যায় পড়লে ভোটগ্রহণকারী কর্মকর্তারা সহযোগিতা করবেন। আশা করি সমস্যা হবেনা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভোটাররা যতক্ষণ লাইনে থাকবেন ততক্ষণ পর্যন্ত ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এটি নির্বাচনী আইনেই আছে।