Dhaka ০৬:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সালিশে মীমাংসার জন্য ডেকে নিয়ে মারধরের অভিযোগে মামলা

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৭:১৭:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১
  • / ১২৮৪ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥সালিশে মীমাংসার জন্য ডেকে নিয়ে দুই জনকে মারধরের অভিযোগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কালুখালী থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের কলকলিয়া গ্রামে। মারধরে আহত ইউনুস মোল্লা ও তুহিন মোল্লা বর্তমানে কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। তাদের বাড়ি একই ইউনিয়নের আখরজানি গ্রামে। মামলার আসামিরা হলো মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান সাগর মোল্লার ভাতিজা মাসুদ মোল্লা, চুন্নু মোল্লা, বাটুল মোল্লা, পান্নু মোল্লা, সোলেমান মোল্লা ও মোস্তফা মোল্লা। আহত তুহিন মোল্লা বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তুহিন মোল্লা জানান,  গ্রামের কয়েকজন কিশোর মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে। এঘটনার মীমাংসার জন্য চেয়ারম্যান সাগর মোল্লার ভাতিজা মাসুদ মোল্লা তাদের ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু সালিশ না করে তাদেরকে বেধরক মারপিট করে মাসুদ মোল্লা।

মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান সাগর মোল্লা জানান, সালিশের কথা বলে মারধর করা হয়নি। মারামারি গ্যাঞ্জাম হওয়ায় দুপক্ষকে ডেকে নিয়ে মিলতাল করার কথা বলেছিলাম। পরে শুনি দুপক্ষই কেস করেছে।

কালুখালী থানার ওসি মাসুদুর রহমান জানান, দুপক্ষই মামলা করেছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। আসামিদের গ্রেপ্তারেরও চেষ্টা চলছে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

সালিশে মীমাংসার জন্য ডেকে নিয়ে মারধরের অভিযোগে মামলা

প্রকাশের সময় : ০৭:১৭:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১

জনতার আদালত অনলাইন ॥সালিশে মীমাংসার জন্য ডেকে নিয়ে দুই জনকে মারধরের অভিযোগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কালুখালী থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের কলকলিয়া গ্রামে। মারধরে আহত ইউনুস মোল্লা ও তুহিন মোল্লা বর্তমানে কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। তাদের বাড়ি একই ইউনিয়নের আখরজানি গ্রামে। মামলার আসামিরা হলো মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান সাগর মোল্লার ভাতিজা মাসুদ মোল্লা, চুন্নু মোল্লা, বাটুল মোল্লা, পান্নু মোল্লা, সোলেমান মোল্লা ও মোস্তফা মোল্লা। আহত তুহিন মোল্লা বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তুহিন মোল্লা জানান,  গ্রামের কয়েকজন কিশোর মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে। এঘটনার মীমাংসার জন্য চেয়ারম্যান সাগর মোল্লার ভাতিজা মাসুদ মোল্লা তাদের ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু সালিশ না করে তাদেরকে বেধরক মারপিট করে মাসুদ মোল্লা।

মৃগী ইউপি চেয়ারম্যান সাগর মোল্লা জানান, সালিশের কথা বলে মারধর করা হয়নি। মারামারি গ্যাঞ্জাম হওয়ায় দুপক্ষকে ডেকে নিয়ে মিলতাল করার কথা বলেছিলাম। পরে শুনি দুপক্ষই কেস করেছে।

কালুখালী থানার ওসি মাসুদুর রহমান জানান, দুপক্ষই মামলা করেছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। আসামিদের গ্রেপ্তারেরও চেষ্টা চলছে।