Dhaka 6:46 pm, Friday, 3 February 2023

রাজবাড়ীতে পেঁয়াজের দাম কমেনি, বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : 05:35:58 pm, Friday, 18 September 2020
  • / 1259 জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ীতে শুক্রবারও ৮০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হতে দেখা গেছে। পেঁয়াজের দাম না কমার কারণ হিসেবে আমদানী না হওয়ার অজুহাত দেখিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। যদিও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তারা নিয়মিত বাজার মনিটরিং করছেন।

রাজবাড়ী বাজারের খুচরা পেঁয়াজ ব্যবসায়ী টোকন, আজাদসহ অনেকেই জানান, আড়ত থেকে তাদের বেশি দামে পেঁয়াজ কিনে আনতে হচ্ছে। এজন্য  বেশি দামে বিক্রি করতে হচেছ। আড়ত থেকে প্রতি মণ পেঁয়াজ কিনে আনছেন ৩২শ থেকে ৩৪শ টাকা করে। খুচরা বিক্রি করছেন ৭৫ থেকে ৬০ টাকা কেজিতে। এছাড়া ছাল নষ্ট পেঁয়াজ বিক্রি করছেন ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজিতে।

নাম প্রকাশে আিনচ্ছুক একজন আড়তদার জানান, এখনও সেভাবে আমদানী না হওয়ায় তাদের বাধ্য হয়ে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তাদের কাছে কোনো পেঁয়াজ মজুদ নেই বলে জানান ওই ব্যবসায়ী।

জানা গেছে, চলতি মৌসুমে রাজবাড়ীতে সাড়ে তিন লাখ মেট্রিক টন পেঁযাজ উৎপাদন হয়েছে রাজবাড়ীতে। য্ াসারা দেশের মধ্যে তৃতীয়। ১২ লাখ জনসংখ্যার জেলায় চাহিদা  ১৮ থেকে ২০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ। হিসাব মতে, মোট উৎপাদিত পেঁয়াজের ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ এখনও কৃষক অথবা ব্যবসায়ীদের কাছে মজুদ থাকার কথা। অথচ আমদানী বন্ধ হওয়ার অজুহাতে গত কয়েকদিন ধরে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ২৫ থেকে ৩০ টাকা। এতে গরীব মানুষদের অতিরিক্ত অর্থ খরচ হচ্ছে।

রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম জানান, পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিয়মিত বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। কোনো ব্যবসায়ী কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

রাজবাড়ীতে পেঁয়াজের দাম কমেনি, বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি

প্রকাশের সময় : 05:35:58 pm, Friday, 18 September 2020

জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ীতে শুক্রবারও ৮০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হতে দেখা গেছে। পেঁয়াজের দাম না কমার কারণ হিসেবে আমদানী না হওয়ার অজুহাত দেখিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। যদিও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তারা নিয়মিত বাজার মনিটরিং করছেন।

রাজবাড়ী বাজারের খুচরা পেঁয়াজ ব্যবসায়ী টোকন, আজাদসহ অনেকেই জানান, আড়ত থেকে তাদের বেশি দামে পেঁয়াজ কিনে আনতে হচ্ছে। এজন্য  বেশি দামে বিক্রি করতে হচেছ। আড়ত থেকে প্রতি মণ পেঁয়াজ কিনে আনছেন ৩২শ থেকে ৩৪শ টাকা করে। খুচরা বিক্রি করছেন ৭৫ থেকে ৬০ টাকা কেজিতে। এছাড়া ছাল নষ্ট পেঁয়াজ বিক্রি করছেন ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজিতে।

নাম প্রকাশে আিনচ্ছুক একজন আড়তদার জানান, এখনও সেভাবে আমদানী না হওয়ায় তাদের বাধ্য হয়ে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তাদের কাছে কোনো পেঁয়াজ মজুদ নেই বলে জানান ওই ব্যবসায়ী।

জানা গেছে, চলতি মৌসুমে রাজবাড়ীতে সাড়ে তিন লাখ মেট্রিক টন পেঁযাজ উৎপাদন হয়েছে রাজবাড়ীতে। য্ াসারা দেশের মধ্যে তৃতীয়। ১২ লাখ জনসংখ্যার জেলায় চাহিদা  ১৮ থেকে ২০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ। হিসাব মতে, মোট উৎপাদিত পেঁয়াজের ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ এখনও কৃষক অথবা ব্যবসায়ীদের কাছে মজুদ থাকার কথা। অথচ আমদানী বন্ধ হওয়ার অজুহাতে গত কয়েকদিন ধরে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ২৫ থেকে ৩০ টাকা। এতে গরীব মানুষদের অতিরিক্ত অর্থ খরচ হচ্ছে।

রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম জানান, পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিয়মিত বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। কোনো ব্যবসায়ী কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।