Dhaka ১১:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনা আশঙ্কায় বালিয়াকান্দিতে হোম কোয়ারেন্টাইনে ইটালি ফেরত বাবা ছেলেসহ ৫জন

সংবাদদাতা-
  • প্রকাশের সময় : ০৯:৫৪:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ মার্চ ২০২০
  • / ১৫৪৪ জন সংবাদটি পড়েছেন

জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে হোম কোয়ারেন্টাইনে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে ইটালি ফেরত বাবা ছেলেসহ একই পরিবারের পাঁচজনকে। তারা সকলেই উপজেলার জঙ্গল ইউনিয়নের বাসিন্দা। গত ২ মার্চ বাবা ছেলে দেশে ফিরলেও উপজেলা প্রশাসন সম্প্রতি জানতে পেরে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম জানান, গত ২ মার্চ তারা ইটালি থেকে দেশে ফিরেছে। সোমবার বিষয়টি জানতে পেরে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যদিও তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের কোনো লক্ষণ নেই। তথাপিও অধিকতর নিরাপদের স্বার্থে তাদেরকে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। একই সাথে তাদের পরিবারের দুই সদস্য এবং গৃহকর্মীকেও কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ইতিমধ্যে সাত দিন পার হয়েছে। বাকী সাত দিন তারা বাড়ির বাইরে বা কারও সংস্পর্শে যেতে পারবেনা। তাদের বাড়ির আশেপাশে গ্রাম পুলিশ দিয়ে পাহারা বসানো হয়েছে।
রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দীপক কুমার বিশ্বাস বলেন, রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে এখন পর্যন্ত এধরণের কোনো রোগী আসেনি। তবে আমরা প্রস্তুতি নিয়ে আছি। বিদেশ থেকে কেউ জেলায় প্রবেশ করলে তারা অন্ততঃ ১৪ দিন যেন বাড়ির বাইরে না যায় এবং কারও সাথে চলাফেরা না করে সে ব্যাপারে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

করোনা আশঙ্কায় বালিয়াকান্দিতে হোম কোয়ারেন্টাইনে ইটালি ফেরত বাবা ছেলেসহ ৫জন

প্রকাশের সময় : ০৯:৫৪:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ মার্চ ২০২০

জনতার আদালত অনলাইন ॥ রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে হোম কোয়ারেন্টাইনে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে ইটালি ফেরত বাবা ছেলেসহ একই পরিবারের পাঁচজনকে। তারা সকলেই উপজেলার জঙ্গল ইউনিয়নের বাসিন্দা। গত ২ মার্চ বাবা ছেলে দেশে ফিরলেও উপজেলা প্রশাসন সম্প্রতি জানতে পেরে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম জানান, গত ২ মার্চ তারা ইটালি থেকে দেশে ফিরেছে। সোমবার বিষয়টি জানতে পেরে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যদিও তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের কোনো লক্ষণ নেই। তথাপিও অধিকতর নিরাপদের স্বার্থে তাদেরকে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। একই সাথে তাদের পরিবারের দুই সদস্য এবং গৃহকর্মীকেও কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ইতিমধ্যে সাত দিন পার হয়েছে। বাকী সাত দিন তারা বাড়ির বাইরে বা কারও সংস্পর্শে যেতে পারবেনা। তাদের বাড়ির আশেপাশে গ্রাম পুলিশ দিয়ে পাহারা বসানো হয়েছে।
রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দীপক কুমার বিশ্বাস বলেন, রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে এখন পর্যন্ত এধরণের কোনো রোগী আসেনি। তবে আমরা প্রস্তুতি নিয়ে আছি। বিদেশ থেকে কেউ জেলায় প্রবেশ করলে তারা অন্ততঃ ১৪ দিন যেন বাড়ির বাইরে না যায় এবং কারও সাথে চলাফেরা না করে সে ব্যাপারে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।