Dhaka ০৭:১৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লাঠি দিয়ে বৃদ্ধ বাবাকে পেটালেন কলেজ শিক্ষক ছেলে

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : ০৬:৫৯:০৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪
  • / ১০৪২ জন সংবাদটি পড়েছেন

লাঠি দিয়ে বৃদ্ধ বাবা আইয়ুব আলী জোয়ার্দারকে বেধরক পিটিয়েছেন তারই কলেজ শিক্ষক ছেলে আব্দুর রাজ্জাক। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মাজবাড়ি ইউনিয়নের বংকুড়ি গ্রামে ঈদের দুইদিন আগে গত মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে। (ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে ঈদের দিন)। আইয়ুব আলী জোয়ার্দার একই গ্রামের বাসিন্দা। অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাক রাজধানী ঢাকার একটি কলেজের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

 সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ৬ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দেখা গেছে, আব্দুর রাজ্জাক দৌড়ে গিয়ে তার বাবা আইয়ুব আলী জোয়ার্দারকে লাঠি দিয়ে বেশ কয়েকটি আঘাত করে। ওই সময় কয়েকজন তাকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করে। তাদের বাধা অতিক্রম করে সে আরও মারতে উদ্যত হয়। পরে তাকে ধরে বাড়ির ভেতর নিয়ে যায়। ঘটনার আকস্মিকতায় আইয়ুব আলী জোয়ার্দার কাঁদতে থাকেন। পরিবারের এক সদস্য তাকে জড়িয়ে ধরেন এবং চেয়ারে বসান। একজন নারী বোতলে পানি ভরে আঘাতের স্থানে প্রলেপ দেন। ওই সময় আইয়ুব আলী জোয়ার্দারকে প্রচন্ড বিমর্ষ দেখাচ্ছিল।

জানা গেছে, আইয়ুব আলী জোয়ার্দারের পাঁচ ছেলে ও চার মেয়ে। আব্দুর রাজ্জাক সবার বড়। অভাব অনটনের সংসার ছিল তাদের। যেকারণে মেজ ভাই তাজউদ্দিন সংসারের হাল ধরেন। তিনি আব্দুর রাজ্জাকের পড়াশোনার খরচ যোগাতেন।

প্রতিবেশী আতিয়ার রহমান জানান, তাজউদ্দিন বহু কষ্ট করেছে ওই পরিবারের জন্য। কৃষিকাজ থেকে শুরু সবকিছু করে সংসার চালিয়েছে। কিছুকাল আগে তাজউদ্দিন বিদেশ যায়। কিডনীর সমস্যার কারণে তিনি দেশে ফিরে আসেন। ভাইদের মধ্যে জমিজমা নিয়ে দ্ব›দ্ব বিরাজ করছিল। সম্প্রতি তার বাবার কাছ থেকে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে একটি খাল কিনে সেটা ভরাট করেন তাজউদ্দিন। এর মধ্যে আব্দুর রাজ্জাক বাড়ি এসে বিষয়টি নিয়ে উচ্চবাচ্য শুরু করেন। থানা থেকে পুলিশ নিয়ে বাড়িতে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে যখন যায় সেখানে তিনিও ছিলেন। আব্দুর রাজ্জাক তাদেরকেও অপমানজনক কথাবার্তা বলে। মান সম্মানের ভয়ে তিনি সেখান থেকে চলে যান। পুলিশ সব দেখে শুনে চলে যায়। এরপরই খবর পান আব্দুর রাজ্জাক তার বাবাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়েছে। পরে তাকে কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

আইয়ুব আলী জোয়ার্দারের ভাতিজা আব্দুস সামাদ জানান, কী বলার আছে! মেজ ভাই তাজউদ্দিন পরিবারটিকে টেনে তুলেছে। একটা ঘটনাতো আর পরিবল্পিতভাবে হয়না। আকস্মিকভাবে একটা ঘটনা ঘটে গেছে। এটা একটা অ্যক্সিডেন্ট। খুবই দুঃখজনক।

মাজবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান কাজী শরিফুল ইসলাম জানান, বিষয়টি একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। একজন ছেলে তার বাবাকে মেরেছে এ ঘটনা কিছুতেই মেনে নেওয়া যায়না।

অভিযুক্ত মো. আব্দুর রাজ্জাকের মোবাইল ফোনে কল করে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ‘কালুখালী থানার ওসির সাথে যোগাযোগ করেন’ বলেই সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

কালুখালী থানার ওসি আলমগীর হুসাইন জানান, পারিবারিক জমিজমা নিয়ে দ্ব›দ্ব আছে। বিষয়টি আমরা জানি। ছেলে তার বাবাকে মেরেছে। আমি নিজে সেখানে গিয়েছিলাম। এলাকার মানুষের সাথে কথা বলেছি। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

Tag :

সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন-

লাঠি দিয়ে বৃদ্ধ বাবাকে পেটালেন কলেজ শিক্ষক ছেলে

প্রকাশের সময় : ০৬:৫৯:০৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

লাঠি দিয়ে বৃদ্ধ বাবা আইয়ুব আলী জোয়ার্দারকে বেধরক পিটিয়েছেন তারই কলেজ শিক্ষক ছেলে আব্দুর রাজ্জাক। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মাজবাড়ি ইউনিয়নের বংকুড়ি গ্রামে ঈদের দুইদিন আগে গত মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে। (ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে ঈদের দিন)। আইয়ুব আলী জোয়ার্দার একই গ্রামের বাসিন্দা। অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাক রাজধানী ঢাকার একটি কলেজের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

 সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ৬ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দেখা গেছে, আব্দুর রাজ্জাক দৌড়ে গিয়ে তার বাবা আইয়ুব আলী জোয়ার্দারকে লাঠি দিয়ে বেশ কয়েকটি আঘাত করে। ওই সময় কয়েকজন তাকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করে। তাদের বাধা অতিক্রম করে সে আরও মারতে উদ্যত হয়। পরে তাকে ধরে বাড়ির ভেতর নিয়ে যায়। ঘটনার আকস্মিকতায় আইয়ুব আলী জোয়ার্দার কাঁদতে থাকেন। পরিবারের এক সদস্য তাকে জড়িয়ে ধরেন এবং চেয়ারে বসান। একজন নারী বোতলে পানি ভরে আঘাতের স্থানে প্রলেপ দেন। ওই সময় আইয়ুব আলী জোয়ার্দারকে প্রচন্ড বিমর্ষ দেখাচ্ছিল।

জানা গেছে, আইয়ুব আলী জোয়ার্দারের পাঁচ ছেলে ও চার মেয়ে। আব্দুর রাজ্জাক সবার বড়। অভাব অনটনের সংসার ছিল তাদের। যেকারণে মেজ ভাই তাজউদ্দিন সংসারের হাল ধরেন। তিনি আব্দুর রাজ্জাকের পড়াশোনার খরচ যোগাতেন।

প্রতিবেশী আতিয়ার রহমান জানান, তাজউদ্দিন বহু কষ্ট করেছে ওই পরিবারের জন্য। কৃষিকাজ থেকে শুরু সবকিছু করে সংসার চালিয়েছে। কিছুকাল আগে তাজউদ্দিন বিদেশ যায়। কিডনীর সমস্যার কারণে তিনি দেশে ফিরে আসেন। ভাইদের মধ্যে জমিজমা নিয়ে দ্ব›দ্ব বিরাজ করছিল। সম্প্রতি তার বাবার কাছ থেকে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে একটি খাল কিনে সেটা ভরাট করেন তাজউদ্দিন। এর মধ্যে আব্দুর রাজ্জাক বাড়ি এসে বিষয়টি নিয়ে উচ্চবাচ্য শুরু করেন। থানা থেকে পুলিশ নিয়ে বাড়িতে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে যখন যায় সেখানে তিনিও ছিলেন। আব্দুর রাজ্জাক তাদেরকেও অপমানজনক কথাবার্তা বলে। মান সম্মানের ভয়ে তিনি সেখান থেকে চলে যান। পুলিশ সব দেখে শুনে চলে যায়। এরপরই খবর পান আব্দুর রাজ্জাক তার বাবাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়েছে। পরে তাকে কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

আইয়ুব আলী জোয়ার্দারের ভাতিজা আব্দুস সামাদ জানান, কী বলার আছে! মেজ ভাই তাজউদ্দিন পরিবারটিকে টেনে তুলেছে। একটা ঘটনাতো আর পরিবল্পিতভাবে হয়না। আকস্মিকভাবে একটা ঘটনা ঘটে গেছে। এটা একটা অ্যক্সিডেন্ট। খুবই দুঃখজনক।

মাজবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান কাজী শরিফুল ইসলাম জানান, বিষয়টি একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। একজন ছেলে তার বাবাকে মেরেছে এ ঘটনা কিছুতেই মেনে নেওয়া যায়না।

অভিযুক্ত মো. আব্দুর রাজ্জাকের মোবাইল ফোনে কল করে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ‘কালুখালী থানার ওসির সাথে যোগাযোগ করেন’ বলেই সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

কালুখালী থানার ওসি আলমগীর হুসাইন জানান, পারিবারিক জমিজমা নিয়ে দ্ব›দ্ব আছে। বিষয়টি আমরা জানি। ছেলে তার বাবাকে মেরেছে। আমি নিজে সেখানে গিয়েছিলাম। এলাকার মানুষের সাথে কথা বলেছি। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।